Sponsor



Slider

বিশ্ব

জাতীয়

রাজনীতি


খেলাধুলা

বিনোদন

ফিচার


যাবতীয় খবর

জিওগ্রাফিক্যাল

ফেসবুকে মুজিবনগর খবর

» » » » প্লাস্টিকের গ্যাস ব্যাগের ব্যবহারে পাকিস্তানে ঝুঁকি বাড়ছে




সম্প্রতি পাকিস্তানের অনেক নাগরিক গ্যাস সংরক্ষণের জন্য প্লাস্টিকের ব্যাগ ব্যবহার করছে। এটি অত্যন্ত বিপজ্জনক এবং জানমালের জন্য ঝুঁকি তৈরি করে৷ পরিবেশেও বিরূপ প্রভাব রয়েছে এই গ্যাস ব্যাগের। খবর ডয়চে ভেলের। ছবি: সংগৃহীত পাকিস্তানের খাইবার পাখতুনখোয়া প্রদেশের চরসদ্দা জেলার একটি গ্রামীণ এলাকায় বসবাস মধ্যবয়সী গৃহকর্মী মাসুমা বিবির৷ দুই বছর আগে তিনি কাঠ দিয়ে রান্না করতেন, কিন্তু সেটা থেকে নির্গত ক্ষতিকারক গ্যাস ও কণাসমূহ শ্বাসপ্রশ্বাসে সমস্যা তৈরি করে৷ বর্তমানে তিনি রান্নার জন্য গ্যাসের ওপর নির্ভরশীল হয়েছেন, যা সংরক্ষণ করা হয় একধরনের প্লাস্টিকের ব্যাগে৷ মাসুমা বিবি বলেন, এই প্লাস্টিকের ব্যাগগুলো গ্যাস বিস্ফোরণ ঘটায় বলে সতর্কতা করা হয়েছে। তবে প্রথমত, ‘আমি এই জাতীয় কোনো দুর্ঘটনার কথা শুনিনি এবং দ্বিতীয়ত, যদি সেটা সত্যিও হয় আমাদের অন্য কোনো বিকল্প নেই।’ গ্যাস সংরক্ষণের জন্য এসব প্লাস্টিকের ব্যাগে সরু মুখনল ও গতিনিয়ন্ত্রক কপাট শক্তভাবে লাগানো থাকে৷ গ্যাস পাইপলাইন নেটওয়ার্কের সঙ্গে সংযুক্ত দোকানগুলোতে এই ব্যাগে প্রাকৃতিক গ্যাস ভরা হয়৷ সেখান থেকে কিনে মানুষ ছোট একটি কম্প্রেসরের সাহায্যে গ্যাস ব্যবহার করে৷ একজন ব্যবসায়ী বলেন, আকারের ভিত্তিতে প্রতিটি পুনরায় ব্যবহারযোগ্য গ্যাস ব্যাগের মূল্য ৫০০ থেকে ৯০০ রুপি এবং প্রতিটি কম্প্রেসরের দাম দেড় হাজার থেকে দুই হাজার রুপি৷ শহর ও গ্রামের মানুষ উভয়ই এগুলো ব্যবহার করে। তিনি আরও বলেন, কার্বন ইস্পাত বা ইস্পাতের অ্যালয় দিয়ে তৈরি গ্যাস সিলিন্ডারের দাম প্রায় ১০ হাজার পাকিস্তানি রুপি যা অনেক পরিবার, দোকানদার এবং ব্যবসায়ীর জন্য কেনা দুঃসাধ্য৷ আরও পড়ুন: টিকে থাকতে ‘বন্ধুপ্রতীম’ দেশগুলোর দিকে তাকিয়ে পাকিস্তান একজন প্লাস্টিকের ব্যাগ ব্যবহারকারী বলেন, এসব ব্যাগে গ্যাস ভরতে এক ঘণ্টার মতো সময় লাগে আর রান্নাঘরে গ্যাস সরবরাহ করার জন্য একটি কম্প্রেসরের দরকার হয়৷ তিনি আরও বলেন, যদিও এই প্রক্রিয়াই গ্যাসের ব্যবহার বাড়ছে কিন্তু এটি জানমালের জন্য অত্যন্ত বিপজ্জনক৷ সম্প্রতি গ্যাসের ব্যাগ ব্যবহারকে বিপজ্জনক আখ্যায়িত করে গ্যাস সংরক্ষণের জন্য এসব ব্যাগ ব্যবহারের বিষয়ে কড়াকড়ি আরোপ করেছে কর্তৃপক্ষ৷ পেশোয়ার শহরের কর্মকর্তারা চলতি মাসে ব্যাগে গ্যাস ভরে বিক্রির জন্য ১৬ জন দোকানদারকে আটক করেছে৷ আরও পড়ুন: পাকিস্তানে তেল শোধনাগার নির্মাণের প্রস্তাব সৌদির তবে জরিমানা ও আটক এড়াতে দোকানদাররা আর প্রকাশ্যে ব্যাগগুলো বিক্রি করছে না। তারা গোপনে এসব ব্যাগ বিক্রি করছে। তারা কেবল সেই সব গ্রাহকদের কাছে বিক্রি করে যাদের তারা বিশ্বাস করে এবং পুলিশকে জানিয়ে দেবে না৷ জ্বালানির উৎসগুলোর মধ্যে পাকিস্তানে প্রাকৃতিক গ্যাস সবচেয়ে সস্তা যা ব্যাপকভাবে খাবার রান্না ও উষ্ণতার জন্য ব্যবহৃত হয়৷ কিন্তু গ্যাসের মজুদ কমে যাওয়ায় কর্তৃপক্ষ বাড়ি, ফিলিং স্টেশন এবং শিল্পকারখানায় সরবরাহ কমিয়ে দিতে বাধ্য হয়েছে৷ গ্যাস সংরক্ষণ ও পরিবহনের জন্য ব্যবহৃত সিলিন্ডারগুলোর উচ্চমূল্য সমস্যাটিকে আরও জটিল করে তুলেছে।






«
Next
Newer Post
»
Previous
Older Post

No comments:

Leave a Reply