Sponsor



Slider

বিশ্ব

জাতীয়

রাজনীতি


খেলাধুলা

বিনোদন

ফিচার


যাবতীয় খবর

জিওগ্রাফিক্যাল

ফেসবুকে মুজিবনগর খবর

» » » » সুইডেনের পর ডেনমার্কেও পোড়ানো হলো পবিত্র কোরআন




ডেনমার্কের রাজধানী কোপেনহেগেনে শুক্রবার (২৭ জানুয়ারি) একটি মসজিদ ও তুরস্কের দূতাবাসের কাছে কোরআন শরীফ পোড়ানোর ঘটনা ঘটেছে। এর আগে সুইডেনে উগ্র ডানপন্থীদের হাতে পবিত্র কোরআন পোড়ানোর ঘটনা ঘটেছে। খবর আল জাজিরার। ডেনমার্কে তুরস্কের দূতাবাসের কাছে কোরআন শরীফ পোড়ানোর ঘটনা ঘটেছে। ছবি: সংগৃহীত সংবাদমাধ্যমের খবরে জানা যায়, ডেনমার্কের উগ্র ডানপন্থী রাজনৈতিক কর্মী রাসমুস পালুদান ও তার দল হার্ড লাইনের অনুসারীরা এ ঘটনার সঙ্গে সরাসরি জড়িত। শুক্রবার (২৭ জানুয়ারি) কোপেনহেগেনে যে মসজিদের সামনে পবিত্র কোরআন পোড়ানো হয়েছে, সেখানে এক ফেসবুক লাইভে তিনি বলেছেন, যুক্তরাষ্ট্র ও তার মিত্রদের সামরিক জোট ন্যাটোতে যতদিন সুইডেনকে অন্তর্ভুক্ত করা না হবে ততদিন এই কর্মসূচি অব্যহত রাখবেন তিনি ও তার অনুসারীরা। শুক্রবার (২৭ জানুয়ারি) কোপেনহেগেনের তুরস্ক দূতাবাস ও তার কাছের একটি মসজিদে পবিত্র কোরআন পোড়ানো হয়। দু’বারই ফেসবুক লাইভে এসেছেন পালুদান। মসজিদের সামনে লাইভে তাকে বলতে শোনা গেছে, এই মসজিদের কোনো স্থান ডেনমার্কে নেই। তুরস্কের দূতাবাসের সামনে লাইভে তিনি বলেন, ‘একবার যদি তিনি সুইডেনকে ন্যাটোতে প্রবেশ করতে দেন, আমি প্রতিশ্রুতি দিচ্ছি, আর কোরআন পোড়াবো না। কিন্তু যদি তা না হয়, সেক্ষেত্রে প্রতি শুক্রবার দুপুর ২ টার দিকে তুরস্কের দূতাবাসের সামনে এ কাজ করব আমি।’ এদিকে, এই ঘটনার পর ডেনমার্কের রাষ্ট্রদূতকে তলব করে কঠোর প্রতিবাদ ও নিন্দা জানিয়েছে তুরস্কের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। ইউক্রেনে রুশ আগ্রাসনের পরিপ্রেক্ষিতে ইউরোপজুড়ে আতঙ্ক বেড়েছে। এমন পরিস্থিতিতে গত বছরের মে মাসে পশ্চিমা সামরিক জোট ন্যাটোয় যোগদানের আবেদন করে সুইডেন। নতুন সদস্য নেয়ার ক্ষেত্রে জোটের বিদ্যমান সদস্যদের সর্বসম্মত সমর্থন প্রয়োজন। এর আগে গত ২১ জানুয়ারি স্টকহোমে তুরস্কের দূতাবাসের সামনে কোরআন শরীফ পোড়ানোর ঘটনাতেও সংশ্লিষ্টতা আছে তার। মূলত তার সুইডিশ অনুসারীরাই সেদিন এ ঘটনা ঘটিয়েছিল। আরও পড়ুন: কোরআন অবমাননা: সুইডেনকে সমর্থন না দেয়ার ঘোষণা তুরস্কের গত বছরের এপ্রিলে রমজানে পালুদানের কোরআন শরীফ পোড়ানোর ঘোষণাকে কেন্দ্র করে উত্তেজনা সৃষ্টি হয়েছিল। তিনি ঘোষণা দিয়ে বলেছিলেন, পবিত্র রমজান মাসে তিনি বিভিন্ন স্থানে ঘুরে ঘুরে পবিত্র কোরআন পোড়াবেন। তাঁর এ ঘোষণায় সুইডেনজুড়ে দাঙ্গা শুরু হয়েছিল। সেই ঘোষণা মোতাবেক তিনি প্রথমে সুইডেনে, এরপর ডেনমার্কে এ কাণ্ড ঘটালেন।






«
Next
Newer Post
»
Previous
Older Post

No comments:

Leave a Reply