Sponsor



Slider

বিশ্ব

জাতীয়

সাম্প্রতিক খবর


খেলাধুলা

বিনোদন

ফিচার

mujib

w

যাবতীয় খবর

জিওগ্রাফিক্যাল

ফেসবুকে মুজিবনগর খবর

» » » » » » গাজায় তিন মাসে ৬৫ হাজার টন বিস্ফোরক ফেলেছে ইসরাইল!




গাজায় গত তিন মাসে ৬৫ হাজার টনের বেশি ওজনের ৪৫ হাজারেরও বেশি বোমা ফেলেছে ইসরাইল। গাজার মিডিয়া অফিসের বরাত দিয়ে বৃহস্পতিবার (৫ জানুয়ারি) এ খবর জানিয়েছে সংবাদমাধ্যম মিডল ইস্ট মনিটর। ইচ্ছাকৃতভাবে গাজার সব আবাসিক এলাকা লক্ষ্য করে বিস্ফোরক ফেলছে ইসরাইলি বাহিনী। ছবি: সংগৃহীত গাজার মিডিয়া অফিস বলছে, গাজা উপত্যকায় গণহত্যা চালাতে দখলদার বাহিনীর বিমান থেকে এরই মধ্যে ৪৫ হাজারের বেশি ক্ষেপণাস্ত্র এবং দৈত্যাকার বোমা ফেলা হয়েছে, যার মধ্যে কয়েকটির ওজন ছিল দুই হাজার পাউন্ড বিস্ফোরকের সমান। ইচ্ছাকৃতভাবে সব আবাসিক এলাকা লক্ষ্য করে এসব বিস্ফোরক ফেলা হয়েছে। গাজায় ইসরাইলি সেনাবাহিনীর ফেলা বিস্ফোরকের ওজন ৬৫ হাজার ছাড়িয়ে গেছে, যা জাপানের হিরোশিমাকে ধ্বংস করে দেয়া যুক্তরাষ্ট্রের ছোড়া পারমাণবিক বোমার চেয়ে ওজনে বেশি এবং তিনগুণ শক্তিশালী। আরও পড়ুন: ইকোনমিস্টের নিবন্ধ /নতুন নেতৃত্ব প্রয়োজন ইসরাইলের এদিকে, হামাস পরিচালিত গাজার স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, ৭ অক্টোবর থেকে এ পর্যন্ত গাজায় ২২ হাজারের বেশি ফিলিস্তিনি নিহত হয়েছেন; আহত হয়েছেন কমপক্ষে ৫৭ হাজার। এমন পরিস্থিতির মধ্যেও দক্ষিণাঞ্চলসহ গাজা উপত্যকাজুড়ে বিমান ও স্থল হামলা অব্যাহত রেখেছে ইসরাইল, যেখানে বাস্তুচ্যুত হাজার হাজার মানুষকে ‘নিরাপদ স্থানে’ সরে যাওয়ার নির্দেশ দেয়া হয়েছে। গাজার স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের তথ্যমতে, ইসরাইলের বোমাবর্ষণে গাজায় নিহতদের মধ্যে দুই-তৃতীয়াংশই নারী ও শিশু। আরও পড়ুন: আন্তর্জাতিক বিচার আদালত /গাজা গণহত্যা মামলার শুনানি ১১ ও ১২ জানুয়ারি অন্যদিকে, নতুন বছরে পা রাখার আগেই ২০২৪ সালজুড়ে অবরুদ্ধ গাজায় যুদ্ধ চালিয়ে যাওয়ার ঘোষণা দিয়ে রেখেছে ইসরাইল। তবে গাজা থেকে কিছু সংখ্যক সেনা সদস্যকে সরিয়ে নেয়ার পরিকল্পনা রয়েছে বলে জানিয়েছে ইসরাইলি প্রতিরক্ষা বাহিনী (আইডিএফ)। আইডিএফের মুখপাত্রের বরাত দিয়ে সোমবার (১ জানুয়ারি) নিউইয়র্ক টাইমস, দ্য টেলিগ্রাফসহ আন্তর্জাতিক বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমের খবরে এসব তথ্য জানানো হয়েছে। বলা হচ্ছে, যুদ্ধের ‘নতুন পর্যায়’ শুরু হওয়ায় এরই মধ্যে সেনাদের সরিয়ে নেয়ার কার্যক্রম শুরু হয়েছে।






«
Next
Newer Post
»
Previous
Older Post

No comments:

Leave a Reply