Sponsor



Slider

বিশ্ব

জাতীয়

সাম্প্রতিক খবর


খেলাধুলা

বিনোদন

ফিচার

mujib

w

যাবতীয় খবর

জিওগ্রাফিক্যাল

ফেসবুকে মুজিবনগর খবর

» » » » নেপালকে হারিয়ে সেমির স্বপ্ন বাঁচিয়ে রাখল বাংলাদেশ




বাংলাদেশ ও নেপালের ম্যাচ। ছবি : আইসিসি হারলেই বাদ পড়ার শঙ্কা। জিতলে টিকে থাকবে যুব বিশ্বকাপের সেমিফাইনালে যাওয়ার সুযোগ। এমন সমীকরণের ম্যাচে সুযোগ হাতছাড়া করল না বাংলাদেশ অনূর্ধ্ব-১৯ দল। ব্যাটে-বলের দাপটে নেপালকে বড় ব্যবধানে হারিয়ে শেষ চারের স্বপ্ন বাঁচিয়ে রাখল আশিকুর রহমান শিবলির দল। যুব বিশ্বকাপের সুপার সিক্সের ম্যাচে নেপালকে ৫ উইকেটে হারিয়েছে বাংলাদেশ। ১৪৮ বল হাতে রেখে বড় জয় পাওয়ায় পয়েন্ট টেবিলে বাংলাদেশের রান রেট এখন ধনাত্মক, +০.৩৪৮। টেবিলে বাংলাদেশের অবস্থান তিনে। বাংলাদেশের উপরে আছে ভারত ও পাকিস্তান। ফলে, শেষ চারে যেতে হলে এই দুদলের একটিকে ছাড়াতে হবে বাংলাদেশের। দক্ষিণ আফ্রিকার ব্লুমফন্টেইনের মাঙাউং ওভালে সুপার সিক্সের গ্রুপ ওয়ানে নিজেদের প্রথম ম্যাচ খেলেছে বাংলাদেশ। বাংলার যুবাদের বিপক্ষে আজ বুধবার (৩১ জানুয়ারি) টস জিতে ব্যাটিং বেছে নেয় নেপাল। ৪৯.৫ ওভারে ১৬৯ রানে অলআউট হয় দলটি। জবাব দিতে নেমে নেপালের ১৬৯ রান বাংলাদেশ পেরিয়ে গেছে ১৪৮ বল বাকি থাকতে। বাংলাদেশের হয়ে সর্বোচ্চ রান করেন আরিফুল হক। ২ ছক্কা ও ৭ চারে ৩৮ বলে ম্যাচের সর্বোচ্চ ৫৯ রান করে দলের জয় সঙ্গে নিয়ে মাঠ ছাড়েন তিনি। এ ছাড়া জিসান খেলেন ৪৩ বলে ৫৫ রানের ইনিংস। ২ ছক্কার সঙ্গে ৬ চার মারেন এই ওপেনার। এর আগে ব্যাটিংয়ে নেমে শুরুতেই উইকেট হারায় নেপাল। ওপেনার বিপিন রাওয়াল দলীয় ১৮ রানে সাজঘরে ফেরেন। মারুফ মৃধার বলে রিজওয়ানের ক্যাচে পরিণত হওয়ার আগে বিপিনের ব্যাট থেকে আসে মাত্র দুই রান। পরের দুই উইকেটও খুব দ্রুতই হারায় নেপাল। আরেক ওপেনার অর্জুন কুমালকে ১৪ রানে ফেরান রোহানাত বর্ষণ। ওয়ানডাউনে নামা আকাশ ত্রিপাঠি তিন রান করে ইকবাল হোসেন ইমনের শিকারে পরিণত হন। দলীয় ২৯ রানে তিন উইকেট হারিয়ে বিপাকে পড়ে নেপাল। সেখান থেকে দলকে একটু থিতু করেন অধিনায়ক দেব ও বিশাল বিক্রম। চতুর্থ উইকেটে ৬২ রানের জুটি গড়েন দুজন। ৯১ রানের সময় আউট হন দেব। জুটি ভাঙেন জিসান আলম। ৬০ বলে ৩৫ করা দেব তালুবন্দি হন বাংলাদেশ অধিনায়ক মাহফুজুর রহমান রাব্বির হাতে। অর্ধশতকের খুব কাছে গিয়ে থামেন বিশাল। ৪৮ রান করা এই ব্যাটারকে বোল্ড করেন বর্ষণ। তবে, তার ইনিংসটি ছিল ভীষণ ধীরগতির। ১০০ বলে ৪৮ করেন তিনি। এরপর খুব একটা প্রতিরোধ গড়তে পারেননি দলের কেউ। গোটা ম্যাচে মাত্র চার নেপালি ব্যাটারের ইনিংস দুই অঙ্ক ছুঁয়েছে। শেষ দিকে সুবাস ভাণ্ডারির ৩৪বলে ১৮ রানের ইনিংসে নেপাল পায় ১৬৯ রানের সংগ্রহ। বাংলাদেশের পক্ষে ৮.৫ ওভারে দুই মেডেনসহ ১৯ রান দিয়ে চার উইকেট শিকার করেন বর্ষণ। তাই ম্যাচসেরাও তিনি। আর ৩৪ রানের বিনিময়ে তিন উইকেট পান জীবন।






«
Next
Newer Post
»
Previous
Older Post

No comments:

Leave a Reply