Sponsor



Slider

বিশ্ব

জাতীয়

সাম্প্রতিক খবর


খেলাধুলা

বিনোদন

ফিচার

mujib

w

যাবতীয় খবর

জিওগ্রাফিক্যাল

ফেসবুকে মুজিবনগর খবর

» » » » জ্ঞানবাপী মসজিদের বেসমেন্টে এবার পূজার অনুমতি!




ভারতের উত্তরপ্রদেশের বারানসিতে অবস্থিত জ্ঞানবাপী মসজিদ নিয়ে নানা তর্ক-বির্তর্কের মধ্যেই এবার মসজিদটির বেসমেন্টে পূজা করার অনুমতি দিয়েছেন একটি আদালত। উত্তরপ্রদেশের বারানসিতে অবস্থিত জ্ঞানবাপী মসজিদ। ছবি: সংগৃহীত স্থানীয় সময় বুধবার (৩১ জানুয়ারি) বিকেলে দেয়া এক রায়ে এই আদেশ দেন আদালত। ভারতীয় সংবাদমাধ্যম এনডিটিভি জানিয়েছে, যে বিচারক এই আদেশ দিয়েছেন, বুধবারই তার চাকরিজীবনে শেষ কর্মদিবস ছিল। আদালতের রায়ে বলা হয়েছে, ‘জ্ঞানবাপী মসজিদের বন্ধ থাকা বেসমেন্টে এখন থেকে পূজা করতে পারবেন আদালতে আবেদনকারীরা। তবে এই পূজা অনুষ্ঠিত হবে স্থানীয় বিশ্বনাথ মন্দিরের পুরোহিতের উপস্থিতিতে।’ এছাড়া এই পূজা নির্বিঘ্ন করার জন্য আদালত মসজিদের সামনে থেকে ব্যারিকেড সরানোরও নির্দেশ দিয়েছেন। আগামী সাত দিনের মধ্যে অন্যান্য প্রয়োজনীয় পদক্ষেপও নিশ্চিত করার নির্দেশ দেয়া হয়েছে। আরও পড়ুন: জ্ঞানবাপী মসজিদের অজুখানায় ‘শিবলিঙ্গ’, নতুন দাবি হিন্দুত্ববাদীদের এর আগে জ্ঞানবাপী মসজিদে জরিপের দাবি জানায় হিন্দুত্ববাদীরা। ভারতের সুপ্রিম কোর্টে জানানো আবেদনে বলা হয়, বারানসির ওই মসজিদের অজুখানায় ‘শিবলিঙ্গ’ আছে বলে বিশ্বাস তাদের। চলতি মাসেই ভারতের উত্তরপ্রদেশের অযোধ্যায় বাবরি মসজিদের জায়গায় উদ্বোধন হয়েছে রামমন্দির। সেই ঘটনার রেশ না কাটতেই এবার বারানসিতে কাশী বিশ্বনাথ মন্দির সংলগ্ন জ্ঞানবাপী মসজিদ নিয়ে রীতিমতো চাঞ্চল্য দেখা দিয়েছে। হিন্দুত্ববাদীদের দাবি, এই মসজিদটির নিচেও মন্দির রয়েছে। স্থানীয় গণমাধ্যম সূত্রের খবর, সোমবার (২৯ জানুয়ারি) ভারতের সুপ্রিম কোর্টে এক আবেদনে হিন্দুত্ববাদীরা জ্ঞানবাপী মসজিদের অজুখানা খুলে জরিপের দাবি জানান। তাদের বিশ্বাস, মুসলমানরা যেটি অজুখানার ফোয়ারা বলে দাবি করে আসছে, সেটি আদতে শিবলিঙ্গ। আরও পড়ুন: জ্ঞানবাপী মসজিদের নিচে মন্দিরের অস্তিত্ব পাওয়ার দাবি! আর্কিওলজিক্যাল সার্ভে অব ইন্ডিয়াকে (এএসআই) দিয়ে ওই জরিপ চালানোর নির্দেশ দেয়ার আবেদনও জানানো হয়েছে। একইসঙ্গে, বর্তমানে নিম্ন আদালতের নির্দেশে সিল করে দেয়া জায়গাটি খুলে দেয়ার আর্জি জানানো হয়।






«
Next
Newer Post
»
Previous
Older Post

No comments:

Leave a Reply