sponsor

sponsor

Slider

বিশ্ব

জাতীয়

রাজনীতি

খেলাধুলা

বিনোদন

ফিচার

যাবতীয় খবর

জিওগ্রাফিক্যাল

ফেসবুকে মুজিবনগর খবর

» » মেক্সিকোর ফুটবলে স্টেডিয়ামে দর্শক ফিরেছে




লকডাউন শিথিল হওয়ায় প্রথমবারের মতো মেক্সিকোর ঘরোয়া ফুটবলে স্টেডিয়ামে দর্শক ফিরেছে। স্বাস্থ্যবিধি মেনে মেক্সিকান লিগা এমএক্সের প্রথম ম্যাচে নেক্সা ও টিজুয়ানার লড়াই দেখতে পেরেছে স্টেডিয়ামের ধারণক্ষমতার ৫০ শতাংশ দর্শক। দীর্ঘদিন পর মাঠে দর্শক ফেরার বিষয়টি ফুটবল অঙ্গনের জন্য ইতিবাচক হিসেবে দেখছেন ভক্তরা। যতই দিন যাচ্ছে কোভিড নাইন্টিনের সংক্রমণ বিশ্বজুড়ে যেনো বেড়েই চলছে। তবে এর মাঝেই ইউরোপিয়ান ফুটবল অঙ্গনসহ বিশ্বের অনেক দেশে মাঠে দর্শক ফেরানোর জন্য বেশ কিছু পরিকল্পনা হাতে নেয় সংশ্লিষ্টরা। যদিও চলতি মাসে ইংল্যান্ডের স্টেডিয়াম গুলোতে দর্শক ফেরানোর কথা থাকলেও,পরিস্থিতি বিবেচনায় মাঠে দর্শক প্রবেশের অনুমতি দেয়নি ব্রিটিশ সরকার। তবে এবার লকডাউন শিথিল হওয়ায় প্রথমবারের মতো মেক্সিকোর ঘরোয়া ফুটবলে স্টেডিয়ামে দর্শক ফিরেছে। মেক্সিকান লিগা এমএক্সের প্রথম ম্যাচটি দর্শকদের জন্য উন্মুক্ত করে দেয় লিগ কর্তৃপক্ষ। দেশটির কেন্দ্রীয় রাজ্যের ভিক্টোরিয়া স্টেডিয়ামে ম্যাচ দেখতে আসা ফুটবল ভক্তরা কঠোর স্বাস্থ্যবিধি মেনেই মাঠে প্রবেশ করেন। দীর্ঘদিন পর মাঠে বসে খেলা দেখাটা ফুটবল অঙ্গনের জন্য ইতিবাচক হিসেবে দেখছেন ভক্তরা। ভক্তরা বলছেন, 'দীর্ঘদিন পর মাঠে বসে খেলা দেখতে পেরেছি। এটা খুবই খুশির খবর। মেক্সিকোতে করোনার জন্য কঠিন সময় পার করছি আমরা। খেলাধুলাকে সবসময় সমর্থন করি। দেশের স্বাস্থ্য বিভাগকে ধন্যবাদ জানাই। পরিস্থিতি বিবেচনায় তারা প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিয়েছে।' মেক্সিকান ঘরোয়া ফুটবলের লিগা এমএক্সের প্রথম ম্যাচে নেক্সা ও টিজুয়ানার লড়াই দেখতে পেরেছে স্টেডিয়ামের ধারণক্ষমতার ৫০ শতাংশ দর্শক। যেখানে ফুটবল ভক্তদের জন্য সামাজিক দুরত্বের পাশাপাশি বিধি মানার নির্দেশনা ছিল বাধ্যতামূলক। যদিও স্টেডিয়ামে বসে খেলো দেখার সময় অনেকের মুখে মাস্ক ছিল না। তবে দীর্ঘদিন পর মাঠে প্রবেশ করে প্রিয় দলের খেলা দেখতে পেরে বেশ রোমাঞ্চিত দর্শকরা। দর্শকরা বলছেন, 'স্বাস্থ্যবিধি মেনেই আমরা ম্যাচ উপভোগ করেছি। বন্ধুদের নিয়ে মাঠে আসতে পেরে সত্যিই খুবই ভাল লাগছে।' বিশ্বের অন্যান্য দেশের মতো বর্তমানে মেক্সিকোতে করোনার প্রাদুর্ভাব বেড়েই চলেছে। দেশটিতে এ পর্যন্ত ৮ লক্ষ ৪২ হাজারেরও বেশি মানুষ করোনায় আক্রান্ত হয়েছে। যেখানে ৮৬ হাজারেরও বেশি মানুষের মৃত্যু হয়।






«
Next
Newer Post
»
Previous
Older Post

No comments:

Leave a Reply