sponsor

sponsor

Slider

বিশ্ব

জাতীয়

রাজনীতি

খেলাধুলা

বিনোদন

ফিচার

যাবতীয় খবর

জিওগ্রাফিক্যাল

ফেসবুকে মুজিবনগর খবর

» » » » চামচঠুঁটো বাটান (বৈজ্ঞানিক নাম:Eurynorhynchus pygmeus)[56]




মহসিন আলী আঙ্গুর// চামচঠুঁটো বাটান Eurynorhynchus pygmeus Eurynorhynchus pygmeus - Pak Thale.jpg অনুৎপাদনশীল Eurynorhynchus pygmeusIbis1869P012AA.jpg উৎপাদনশীল সংরক্ষণ অবস্থা মহাবিপন্ন (আইইউসিএন ৩.১)[১] বৈজ্ঞানিক শ্রেণীবিন্যাস জগৎ: Animalia পর্ব: কর্ডাটা

শ্রেণী: পক্ষী বর্গ: Charadriiformes পরিবার: Scolopacidae গণ: Eurynorhynchus Nilsson, 1821 প্রজাতি: E. pygmeus দ্বিপদী নাম Eurynorhynchus pygmeus (Linnaeus, 1758) চামচঠুঁটো বাটান (বৈজ্ঞানিক নাম:Eurynorhynchus pygmeus),[২] এক জাতের ছোটো পাখি। সৈকতের কাদা-পানি হতে পোকা ধরার জন্য চড়ই আকারের এ পাখিটির চঞ্চু চামচের মত। গ্রীষ্মে উত্তরপূর্ব রাশিয়া বিশেষত সাইবেরিয়াতে এরা বাসা বাঁধে। পরে উপকূল ধরে উড়ে এসে শীতে দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ায় বিশেষত মিয়ানমার ও বাংলাদেশ বাসা বাঁধে। থাকে উপকূলীয় এলাকার কাদাচরে বা সৈকতের কাছাকাছি নরম মাটিতে। তাই এটি সৈকতপাখি হিসেবেও পরিচিত। এই পাখিটি মহাবিপন্ন বলে বিবেচিত।[৩] আকার ঠোঁটের চিত্র। এ পাখির দৈর্ঘ্য ১৭ সেন্টিমিটার, ডানা ১০ সেন্টিমিটার, ঠোঁট ২.২ সেন্টিমিটার, ঠোঁটের চামচের মতো অংশ ১.১ সেন্টিমিটার, পা ২.১ সেন্টিমিটার ও লেজ ৩.৮ সেন্টিমিটার। এর উপরের অংশের রঙ অনেকটা ফিকে ধূসর ও নিচের অংশটা সাদা।[৩] খাদ্য ভেজা বালি-কাদার ওপরের স্তর থেকে এরা খাদ্য সংগ্রহ করে। এদের খাদ্যের তালিকায় আছে_ নানা জাতের অমেরুদণ্ডী প্রাণী।[৩] স্বভাব শেওলা বা খাটো উইলো গাছে ঢাকা প্রান্তরের মাটিতে ঘাস, পাতা, শেওলার বাসা বানিয়ে এগুলো ডিম পাড়ে। একসঙ্গে চারটি পর্যন্ত ডিম দেয়। ২০ দিনের মাথায় ডিম থেকে ছানা বের হয় এবং চার সপ্তাহের মাথায় ছানা বাসা ছেড়ে উড়তে শেখে।[৩] তথ্যসূত্র






«
Next
Newer Post
»
Previous
Older Post

No comments:

Leave a Reply