sponsor

sponsor


Slider

বিশ্ব

জাতীয়

রাজনীতি


খেলাধুলা

বিনোদন

ফিচার


যাবতীয় খবর

জিওগ্রাফিক্যাল

ফেসবুকে মুজিবনগর খবর

» » » » » টস জিতে ব্যাটিংয়ে বাংলাদেশ




তামিম ইকবাল। ছবি : সংগৃহীত পাল্লেকেলেতে আজ বুধবার থেকে মাঠে গড়িয়েছে বাংলাদেশ-শ্রীলঙ্কা টেস্ট সিরিজ। চলতি সফরে স্বাগতিকদের বিপক্ষে বিশ্ব টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের অন্তর্গত দুটি ম্যাচ খেলবে বাংলাদেশ। যার প্রথমটিতে আজ টস জিতে আগে ব্যাটিং করার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন বাংলাদেশ অধিনায়ক মুমিনুল হক। ম্যাচ শুরু হচ্ছে বাংলাদেশ সময় সকাল সাড়ে ১০টায়। লঙ্কানদের বিপক্ষে সিরিজটি হওয়ার কথা ছিল গত বছর। কিন্তু করোনার কারণে পর পর দুবার পিছিয়ে দেওয়া হয়। এর মধ্যে করোনা বিরতির পর প্রথম মাঠে ফিরেই ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজ ৩-০ ব্যবধানে জিতে বাংলাদেশ। তবে ক্যারিবীয়দের কাছে টেস্ট সিরিজ ছিল হতাশার। দুই ম্যাচের সিরিজ ২-০ ব্যবধানে হারে যায় টাইগারেরা। সিরিজে ওয়েস্ট ইন্ডিজের শীর্ষ খেলোয়াড়েরা ছিলেন না। তারপরও টেস্ট সিরিজে বিধ্বস্ত হয় বাংলাদেশ। এর পর নিউজিল্যান্ড সফরে গিয়ে তিন ম্যাচের ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টি সিরিজে হেয়াইটওয়াশ হয় বাংলাদেশ। দলের এমন পারফরম্যান্সে প্রশ্ন উঠেছে বড় কোনো দলের বিপক্ষে লড়াই করার সামর্থ্য আছে কি না। এখন পর্যন্ত সাদা পোশাকে ১২১ টেস্ট খেলেছে বাংলাদেশ দল। জিতেছে মাত্র ১৪টিতে। হেরেছে ৯১টি। এরমধ্যে ৪৩টি ম্যাচে ইনিংস ব্যবধানে হার টাইগারদের। আর ১৬ ম্যাচ ড্র হয়েছে। অবশ্য শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ভালো করতে আশাবাদী বাংলাদেশ। এখন পর্যন্ত শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ২০টি টেস্ট খেলেছে বাংলাদেশ। জিতেছে মাত্র একটিতে। হেরেছে ১৬টিতে। তবে শেষ পাঁচ ম্যাচের একটি জয়ের সঙ্গে দুটিতে ড্রও করেছে। শ্রীলঙ্কার মাটিতে টাইগারদের জয়টি এসেছিল ২০১৭ সালে। যা ছিল বাংলাদেশের শততম টেস্ট। তবে ক্রিকেটে বর্তমান সময়টা মোটেই ভালো যাচ্ছে না বাংলাদেশের। সাদা পোশাকে অবস্থা আরও মলিন। টেস্ট ক্রিকেটে চরম দুঃসময় যাচ্ছে বাংলাদেশের। তবুও শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে টেস্ট সিরিজ শুরুর আগে কোনো চাপ নেই বলে জানালেন বাংলাদেশ অধিনায়ক মুমিনুল হক। নিজের প্রস্তুতি ও আশার কথা জানিয়ে গতকাল অধিনায়ক বলেন, ‘বাংলাদেশে থাকতেও বলে এসেছি, বলব না খুব ভালো প্রস্তুতি। তবে এখনকার যে পরিস্থিতি, সেই অনুযায়ী ভালো প্রস্তুতিই হয়েছে। প্রস্ততি ম্যাচ খেলেছি, দুই-তিন দিন অনুশীলন করেছি, আজকেও করব। দেশের জন্য আন্তর্জাতিক ম্যাচ খেলতে গেলে কিছু পরিস্থিতি আসবে, যেগুলোতে মানসিক ও শারীরিকভাবে নিজেকে মানিয়ে নিতে হবে। আশার তো কোনো শেষ নেই। আশা সবসময় থাকতে হবে। আপনি এই জায়গায় এসেছেন শুধু অংশ নিতে, তাহলে তো হবে না। তাহলে ক্রিকেট না খেলাই ভালো। যেখানেই যান, যত খারাপ পরিস্থিতি থাকুক, পরের ম্যাচটা অবশ্যই জেতার আশা থাকতে হবে, স্পৃহা থাকতে হবে। এটা নিয়েই আমরা মাঠে নামব।






«
Next
Newer Post
»
Previous
Older Post

No comments:

Leave a Reply