sponsor

sponsor


Slider

বিশ্ব

জাতীয়

রাজনীতি


খেলাধুলা

বিনোদন

ফিচার


যাবতীয় খবর

জিওগ্রাফিক্যাল

ফেসবুকে মুজিবনগর খবর

» » » মগবাজারে বিস্ফোরণ: ভবনের নিচে মিলল মিথেন গ্যাস




রাজধানীর মগবাজারে বিস্ফোরিত ভবনের নিচতলায় ১২ শতাংশ মিথেন গ্যাসের উপস্থিতি পেয়েছে বলে জানিয়েছে কাউন্টার টেররিজম ইউনিট। মঙ্গলবার (২৯ জুন) ঘটনাস্থলে এসে বিস্ফোরণের প্রকৃত কারণ খুঁজছে ফায়ার, সার্ভিস, ওয়াসাসহ পুলিশের কয়েকটি বিশেষ দল। আইজিপি ও বিস্ফোরক অধিদপ্তরের পর এবার কাউন্টার টেররিজম ইউনিটও জানাল, ঘটনাস্থলে পাওয়া গেছে মিথেন গ্যাসের উপস্থিতি। এরই মধ্যে কাউন্টার টেররিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম ইউনিটের প্রধান মোহাম্মদ আসাদুজ্জামান জানান, ‘আমরা প্রাথমিকভাবে অনুমান করছি যে, এ রকম কোনো গ্যাস চেম্বার, যে চেম্বারটি বাতাসের সংস্পর্শে এসে এ রকম একটি এক্সক্লুসিভ মিক্সার তৈরি করেছিল এবং যার ফলে এ রকম বড় একটি বিস্ফোরণের ম্যাসিভ এক্সপ্লোশনের ঘটনা ঘটেছে।’ এদিকে বিস্ফোরণে ৭ জন নিহতের ঘটনায় অবহেলাজনিত মৃত্যুর অভিযোগে রমনা থানায় মামলা করেছে পুলিশ। সেখানকার কোনো ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের গাফিলতি ছিল কি না, তা খতিয়ে দেখবে সংশ্লিষ্টরা। ডিএমপির রমনা জোনের অতিরিক্ত উপকমিশনার হারুন অর রশিদ বলেন, মগবাজারের বিস্ফোরণের ঘটনায় রমনা থানায় মামলা হয়েছে। সেখানে ভবন মালিকসহ যারা ভবন দেখভাল রক্ষণাবেক্ষণ, সংরক্ষণ এবং যারা ওখানে ভাড়াটিয়া ব্যবসায়ী হিসেবে ছিলেন যেমন- গ্র্যান্ড কনফেকশনারি, শর্মা হাউজ, বেঙ্গল মিট বা সিঙ্গার গ্রুপের লাইসেন্সহীন বা অনুমোদিত বিদ্যুৎ বা গ্যাসের কোনো সংযোগ ছিল কি না এবং এদের নিজেদের ব্যবসায়িক মালামাল মজুত, ওখানে রাখার ক্ষেত্রে কোনো ধরনের অবহেলা ছিল কি না সে বিষয়গুলো তুলে ধরা হয়েছে। ৩০৪-এর ক ধারায় মামলা করা হয়েছে বলেও জানান পুলিশের এই অতিরিক্ত উপকমিশনার। অন্যদিকে, শেখ হাসিনা বার্ন ইনস্টিটিউটের সামনে অপেক্ষায় স্বজনরা। মগবাজারের বিস্ফোরণে আহতদের কারও মা, কারও স্ত্রী, কারও ভাইয়ের সংকটাপন্ন সময় কাটছে হাসপাতালে বিছানায়। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ বলছে, আশঙ্কাজনক ৩ জনের অবস্থার কোনো উন্নতি নেই। শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটের প্রধান সমন্বয়ক ডা. সামন্ত লাল সেন বলেন, এখন আছে পাঁচজন এর মধ্যে তিনজন আইসিইউতে আছে। তারা জীবন-মৃত্যুর সন্ধিক্ষণে। তাদের ৯০ শতাংশ পোড়া। বাকি দুজনের অবস্থা স্থিতিশীল।






«
Next
Newer Post
»
Previous
Older Post

No comments:

Leave a Reply