Sponsor



Slider

বিশ্ব

জাতীয়

রাজনীতি


খেলাধুলা

বিনোদন

ফিচার


যাবতীয় খবর

জিওগ্রাফিক্যাল

ফেসবুকে মুজিবনগর খবর

» » » » যার হয়ে জেলে ছিলেন মিনু, অবশেষে গ্রেপ্তার সেই কুলসুমী




চট্টগ্রাম নগরীর পতেঙ্গা থেকে আজ বৃহস্পতিবার ভোরে কুলসুমীকে গ্রেপ্তার করা হয়। ছবি : ২০০৬ সালে এক পোশাককর্মীকে শ্বাসরোধে হত্যার পর দায়ের হওয়া মামলায় ২০১৭ সালের নভেম্বরে যাবজ্জীবন সাজা হয়েছিল কুলসুম আকতার কুলসুমীর। অভিযোগ ওঠে, সামান্য খাদ্য সহযোগিতার আশ্বাসে ২০১৮ সালের ১২ জুন কুলসুমীর পরিবর্তে কারাগারে যান মিনু আকতার নামের এক নারী। দীর্ঘদিন পর এ মর্মান্তিক ঘটনা নজরে আসে চট্টগ্রামের এক আইনজীবীর। তিনি বিষয়টি জেল কর্তৃপক্ষের নজরে আনেন। পরে উচ্চ আদালতের নির্দেশে মিনু গত ১৬ জুন কারাগার থেকে মুক্তি পান। এরপর থেকেই মূল আসামি কুলসুমীকে হন্যে হয়ে খুঁজছিল পুলিশ। এর মধ্যে মুক্তি পাওয়ার ১৩ দিনের মাথায় রহস্যজনকভাবে এক সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত হন বিনাদোষে সাজা খাটা মিনু আকতার। এসব বিভিন্ন ঘটনার পর অবশেষে মূল আসামি কুলসুমীকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। চট্টগ্রাম নগরীর পতেঙ্গা থেকে আজ বৃহস্পতিবার ভোরে তাঁকে গ্রেপ্তার করা হয়। পুলিশ বলছে, এ ঘটনায় সম্পৃক্ত একাধিক ব্যক্তিকে খুঁজছে তারা। কোতোয়ালি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) নেজাম উদ্দিন বলছেন, লোভ দেখিয়ে সাজা খাটানোর পেছনে একাধিক চক্র জড়িত। এদিকে, পুরো ঘটনা তদন্তে কুলসুমীকে ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদ করা প্রয়োজন বলে মনে করেন মিনুর আইনজীবী গোলাম মাওলা মুরাদ। এরই মধ্যে পুলিশের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, কুলসুমীকে গ্রেপ্তারের পর প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে মিনুকে ফাঁসানোর ঘটনায় মর্জিনা নামের আরও এক নারীর সম্পৃক্ততা পেয়েছে পুলিশ। তাকে গ্রেপ্তারের জন্য চেষ্টা চলছে। জানা গেছে, মিনু জেলে থাকা অবস্থায় বুকে পেরেক বিঁধে মৃত্যু হয় তাঁর তিন বছর বয়সী শিশুকন্যার। সম্প্রতি হারিয়ে গিয়েছিল তাঁর ছেলেও। পরে নারায়ণগঞ্জের শিশু সংশোধন কেন্দ্র থেকে তাকে উদ্ধার করে পুলিশ






«
Next
Newer Post
»
Previous
Older Post

No comments:

Leave a Reply