sponsor

sponsor


Slider

বিশ্ব

জাতীয়

রাজনীতি


খেলাধুলা

বিনোদন

ফিচার


যাবতীয় খবর

জিওগ্রাফিক্যাল

ফেসবুকে মুজিবনগর খবর

» » » » » ভ্যাকসিন ছাড়া চাকরি করা যাবে না ডিজনি-ওয়ালমার্টে




মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সব থেকে বেশি সংখ্যক চাকরিজীবীদের প্রতিষ্ঠান হচ্ছে ডিজনি এবং ওয়ালমার্ট। যুক্তরাষ্ট্রের অনেক অধিবাসীই যখন ভ্যাকসিনের ব্যাপারে উদাসীন, যেখানে মানুষদেরকে ভ্যাকসিনের কার্যকারিতা বোঝাতে সরকারই হিমশিম খাচ্ছে, ঠিক সেখানেই ডিজনি এবং ওয়ালমার্ট সাফ জানিয়ে দিয়েছে, ভ্যাকসিন ছাড়া তাদের প্রতিষ্ঠানে কাজ করা যাবে না। ভ্যাকসিন ছাড়া চাকরি করা যাবে না ডিজনি-ওয়ালমার্টে ডিজনি জানিয়েছে যারা তাদের প্রতিষ্ঠানে ইউনিয়নভুক্ত কর্মচারী এবং যারা ঘণ্টার ভিত্তিতে পার্ট-টাইম চাকরি করছে তাদের সকলকেই বাধ্যতামূলক ভ্যাকসিন নিতে হবে। অন-সাইটে কাজ করা কর্মচারীদের ডিজনি ভ্যাকসিন গ্রহণের জন্য ৬০ দিন সময় দিয়েছে। নতুন যারা ডিজনিতে যোগ দিবে সকলের জন্য ভ্যাকসিন সার্টিফিকেট বাধ্যতামূলক করেছে প্রতিষ্ঠানটি। ডিজনি তাদের এই কর্মসূচির নাম দিয়েছে 'ভ্যাকসিন ম্যানডেট'। করোনার সময়ে যারা হোম অফিস করেছে তাদেরকে অফিসে ফিরতে হলে ভ্যাকসিন সার্টিফিকেট নিয়ে ফিরতে হবে বলে জানিয়েছে প্রতিষ্ঠানটি। শ্রমিক ইউনিয়নের সাথে সহযোগিতামূলক আচারণের মাধ্যমে কর্মচারীদের ভ্যাকসিন কার্যক্রমকে চলমান রাখতে চায় ডিজনি। অন্যদিকে যুক্তরাষ্ট্রের সব থেকে বড় রিটেইলার শপ ওয়ালমার্টের সিইও ডগ ম্যাকমিলন বলেছেন, করোনা পরবর্তী সময়ে কর্মীদের অফিসে যোগদান করতে হলে অবশ্যই ভ্যাকসিন নিয়ে তারপরে আসতে হবে। শুক্রবার (৩০ জুলাই) তাদের প্রকাশিত একটি প্রজ্ঞাপনে ভ্যাকসিন নেয়ার সর্বশেষ সময় ৪ অক্টোবর পর্যন্ত বেধে দেওয়া হয়। ম্যাকমিলন আরও বলেন, 'কর্মীরা একে একে কাজে যোগদান করছে। তবে করোনা পরবর্তী এই সময়টিকে বেশ ভালোভাবে পর্যবেক্ষণ করছে ওয়ালমার্ট।' প্রয়োজন সাপেক্ষে অন্যান্য ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানান কোম্পানিটির সিইও। তবে করোনা পরবর্তী এই সময়ে গ্রাহকদের মাক্স পড়ার কোন বাধ্যবাধকতা থাকছে না বলে জানায় প্রতিষ্ঠান দুইটি। তবে অতিরিক্ত সতর্কতার জন্য সামাজিক দূরত্বের উপরে গুরুত্বারোপ করা হয়। ওয়ালমার্ট তাদের কর্মচারীদের 'মাক্স পরিধান বাধ্যতামূলক' নিয়মটি এখনও বজায় রেখেছে। প্রতিষ্ঠানটি পূর্বে ভ্যাকসিন দেওয়ার জন্য কর্মচারীদের ৭৫ ডলার করে উৎসাহ ভাতা দিয়ে এসেছিলো। বর্তমানে সেটি বাড়িয়ে ১৫০ ডলার করা হয়েছে। উল্লেখ্য, যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিষ্ঠানগুলো ধীরে ধীরে করোনা পরবর্তী সময়ের সাথে খাপ খাইয়ে নেওয়ার চেষ্টা করছে। বেশ কিছু বাধ্যবাধকতা মেনে চালু হচ্ছে যুক্তরাষ্ট্রের কর্পোরেট কোম্পানিগুলো। সূত্র- সিএনএন






«
Next
Newer Post
»
Previous
Older Post

No comments:

Leave a Reply