sponsor

sponsor


Slider

বিশ্ব

জাতীয়

রাজনীতি


খেলাধুলা

বিনোদন

ফিচার


যাবতীয় খবর

জিওগ্রাফিক্যাল

ফেসবুকে মুজিবনগর খবর

» » » » যদি পুরোপুরি ধ্বংস হয়ে যায় অ্যামাজন, তাহলে কী হবে!




আশঙ্কাজনকহারে কমে যাচ্ছে অ্যামাজন রেইনফরেস্ট। অ্যামাজন বন থেকে ফুটবল মাঠের আকারের বনাঞ্চল ধ্বংস হয়ে যাচ্ছে প্রতি ১ সেকেন্ডে। দাবানল, বন উজাড় আর উষ্ণায়নের কারণে আমাজনের বেহাল অবস্থা। শুধু চলতি বছর ব্রাজিলের বিভিন্ন বনে ৭৪ হাজার বার আগুন লেগেছে। পৃথিবীর ফুসফুস হিসেবে পরিচিত অ্যামাজন এখন পৃথিবী থেকে গায়েব হওয়ার পথে। বিজ্ঞানীরা ভয়াবহ ধারণা দিয়েছেন, অ্যামাজন বন না থাকলে কী হতে পারে? যদি পুরোপুরি ধ্বংস হয়ে যায় অ্যামাজন, তাহলে কী হবে! পৃথিবীর অর্ধেক উদ্ভিদ, প্রাণী আর অনুজীব ধ্বংস হয়ে যাবে যদি অ্যামাজন বন না থাকে। পৃথিবীর ১০ শতাংশ প্রাণীর আবাসস্থল এই অ্যামাজন। ৪০ হাজার প্রজাতির উদ্ভিদ, ৩ হাজার প্রজাতির মাছ, ৩৭০ প্রজাতির সরীসৃপ, ২৫ লাখ প্রজাতির পোকামাকড় আছে। অনেক বিশেষজ্ঞ বলছেন, বর্তমানে প্রতিদিন ১৩৭ প্রজাতির উদ্ভিদ, প্রাণী আর পোকামাকড় এই বন থেকে বিলুপ্ত হয়ে যাচ্ছে। বছরে ৫০ হাজার প্রজাতির প্রাণী ও উদ্ভিদ বিলুপ্ত হচ্ছে এই বনাঞ্চল থেকে। এভাবেই যদি বন উজাড় হতে থাকে, পৃথিবীর বিলুপ্তপ্রায় ১১৮ প্রজাতির উদ্ভিদ আর প্রাণীসহ পৃথিবীর অর্ধেক প্রজাতি হারিয়ে যাবে। অ্যামাজনের প্রকৃতি থেকে মানুষের ৯০ শতাংশ অসুখের ওষুধ তৈরির সম্ভাবনা আছে। অনেক ওষুধ অ্যামাজনের উদ্ভিদ থেকে তৈরি হয়। আধুনিক মেডিকেল ওয়ার্ল্ড অ্যামাজন রেইনফরেস্টের ওপর নির্ভরশীল। এই রেইনফরেস্ট না থাকলে মানুষকে সুস্থ করে তোলার অনেক ওষুধ তৈরি করা সম্ভব হবে না। এখন অন্তত ১২১ টি রোগের ওষুধ অ্যমাজনের বনের বিভিন্ন উদ্ভিদ থেকে তৈরি হয়। গ্লুকোমা, লিউকেমিয়া, হৃদরোগ , ম্যালেরিয়া রোগের ওষুধ শুধু অ্যামাজনের উদ্ভিদ দিয়েই তৈরি হয়। এই রেইনফরেস্ট ৮০ হাজার উদ্ভিদ প্রজাতির আবাস। যেখান থেকে এখন পর্যন্ত মাত্র ১ শতাংশ পরীক্ষা করে ওষুধ তৈরির কাজে লাগানো হয়েছে। মরণব্যাধির জন্য ওষুধ তৈরি হতে পারে এই বন থেকে। সেই সুযোগও থাকবে না যদি এই বনই না থাকে। এই বন ধ্বংস হলে এই অঞ্চলে বৃষ্টিপাতই কমে যাবে। অনেক বেশি খরা দেখা দেবে। বন্যাও হবে অনেক। প্রাণীর এই বিশাল আবাস ধ্বংসের প্রভাব পড়বে পুরো পৃথিবীতে। অনেক স্থানে খরা আর বন্যা দেখা দেবে। অ্যামাজনের কারণে যেসব স্থানে বৃষ্টিপাত হয়, বন উজাড়ের কারণে এরইমধ্যে সেসব স্থানে বৃষ্টিপাত কমে গেছে। আরও পড়ুন: আন্তর্জাতিক মহাকাশ স্টেশনে ফাটল, আতঙ্কে নভোচারীরা গাছ আর উদ্ভিদ কার্বন ডাই অক্সাইড শোষণ করে। বছরের পর বছর ধরে এই কার্বন ডাই অক্সাইড শোষণ করে রেখেছে অ্যামাজন। যদি অ্যামাজন না থাকে, কোটি কোটি টন কার্বন ডাই অক্সাইড বায়ুমণ্ডলে উন্মুক্ত হবে। বায়ুমণ্ডলে ধ্বংসাত্মক গ্রিনহাউজ গ্যাস ৫ থেকে ৬ গুণ বাড়বে। বিশ্ব উষ্ণায়ন বিদ্যুৎ গতিতে বাড়বে। বৃষ্টিপাত কমলে আর খরা বাড়লে কৃষিকাজ ব্যাহত হবে, মানুষ খাওয়ার জন্য পানি পাবে না, খাদ্যসংকট পৌঁছাবে চরমে। বৃষ্টিপাত না হলে ফসলের ক্ষতি হবে। দেখা দিতে পারে দুর্ভিক্ষ। অ্যামাজন রেইনফরেস্টে এখন ৩ হাজার রকমের ফল পাওয়া যায়। বিশ্বের ৮০ শতাংশ খাবার তৈরি হয় এই রেইনফরেস্টে। এরমধ্যে আছে অ্যাভোকাডো, কমলা, আঙ্গুর, কলা, আম, আনারস, কফি, নারিকেল, চকোলেট আর টমেটো। অ্যামাজন না থাকলে আশঙ্কাজনকহারে কমে যাবে খাবারের সরবরাহ। বিশ্বের বন্যপ্রাণী সংস্থা বলছে, অ্যামাজন ১০ হাজার কোটি মেট্রিক টন কার্বন শোষণ করে রাখে। যদি এই বন পুড়ে যায়, কার্বন ডাই অক্সাইড থেকে পৃথিবীর বায়ুমণ্ডলকে আর কেউ বাঁচাতে পারবে না। কার্বন ডাই অক্সাইড বায়ুমণ্ডলে থাকলেও তৈরি হবে না অক্সিজেন। রেইনফরেস্ট পুড়ে ছাই হয়ে গেলে পৃথিবীর তাপমাত্রা ৩ ডিগ্রি সেলসিয়াস বেড়ে যাবে। অতিরিক্ত খরা হবে। শুষ্ক মৌসুমের কারণে আরও বাড়বে দাবানল। এই বন পৃথিবীর ৩ কোটি মানুষের আবাস। এরমধ্যে ২৭ লাখই উপজাতি। ৩৫০ টি গোষ্ঠীর জীবন জীবিকা অ্যামাজন বনের ওপর নির্ভরশীল। যারা শহরের দিকে থাকেন, তারাও খাবার আর ওষুধের জন্য এই বনের ওপরই নির্ভরশীল। বন না থাকলে আশ্রয়ের খোঁজে উদ্বাস্তু হবে লাখ লাখ মানুষ। বিশুদ্ধ পানির ২০ শতাংশই হারাবে মানুষ যদি এই বন ধ্বংস হয়। অ্যামাজন নদী পৃথিবীর বিশুদ্ধ পানির উৎসগুলোর একটি। প্রতি সেকেন্ডে ১ লাখ ৭৫ হাজার কিউবিক মিটার বিশুদ্ধ পানি অ্যামাজন নদী থেকে আটলান্টিক সমুদ্রে পড়ে। এই পানি এখানকার উদ্ভিদ, প্রাণী, খনিজ পদার্থ আর ছত্রাকের জন্য খুব প্রয়োজনীয়। বৃষ্টিপাত না হলে এই বিশুদ্ধ পানির উৎস আর থাকবে না। অ্যামাজন বন ধ্বংস হলে ক্যান্সারের বিরুদ্ধে লড়াই করা ৩ হাজার উদ্ভিদের মধ্যে ৭০ শতাংশই হারিয়ে যাবে। এই রেইনফরেস্টেই আছে প্রাণঘাতী ক্যান্সারের সাথে লড়াই করা উদ্ভিদগুলো। পেরিউইঙ্ক্যেল ক্যান্সারের প্রতিষেধকের মধ্যে অন্যতম। রেইনফরেস্টের ভিনক্রিস্টাইন উদ্ভিদ থেকে তৈরি হয় এই ওষুধ, যা ক্যান্সার প্রতিরোধে কার্যকরী। এই উদ্ভিদও থাকবে না যদি অ্যামাজন বন না থাকে। তাই যদি অ্যামাজন বন ধ্বংস হয় ভয়াবহ বিপর্যয় নেমে আসবে মানবজাতির ওপর।






«
Next
Newer Post
»
Previous
Older Post

No comments:

Leave a Reply