Sponsor



Slider

বিশ্ব

জাতীয়

রাজনীতি


খেলাধুলা

বিনোদন

ফিচার


যাবতীয় খবর

জিওগ্রাফিক্যাল

ফেসবুকে মুজিবনগর খবর

» » » » করোনা সংক্রমণ কমলেও আত্মতুষ্টির সুযোগ নেই: স্বাস্থ্য অধিদপ্তর




দেশে মহামারি করোনভাইরাসের সংক্রমণ অনেকটাই কমে এসেছে। এতে সবার মধ্যে অনেকটা স্বস্তি ফিরে এলেও স্বাস্থ্য অধিদপ্তর বলছে সংক্রমণের হার কমলেও আত্মতুষ্টির কোনো সুযোগ নেই। রোববার (১৭ অক্টোবর) স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের নিয়মিত করোনা বিষয়ক স্বাস্থ্য বুলেটিনে এ তথ্য জানান অধিদপ্তরের মুখপাত্র অধ্যাপক ডা. নাজমুল ইসলাম। তিনি বলেন, বর্তমান করোনা সংক্রমণ পরিস্থিতি খুবই স্বস্তিদায়ক। তবে আত্মতুষ্টির সুযোগ নেই। গত সাত দিনে আগের সপ্তাহ থেকে আক্রান্ত শনাক্ত কমেছে ৮.৫৮ শতাংশ। মৃত্যু কমেছে ৩৪ শতাংশ। নাজমুল ইসলাম বলেন, আমাদের অবশ্যই স্বাস্থ্যবিধি মানতে হবে। দেশের শিক্ষা কার্যক্রম, অর্থনীতি সচল রাখতে সবাইকে দায়িত্বশীল আচরণ করতে হবে। ডেঙ্গু প্রসঙ্গে অধিদপ্তরের এ কর্মকর্তা বলেন, এডিসবাহী মশা সাধারণত দিনের বেলায় কামড় দেয়। সেজন্য দিনে ঘুমালেও মশারি টানিয়ে ঘুমাতে হবে। বর্তমানের অনেক কারণেই জ্বর হতে পারে। হতে পারে সেটি করোনাভাইরাস (কোভিড-১৯) বা ডেঙ্গু। তাই যদি জ্বর আসে কোনো ধরনের অবহেলা করবেন না। তিনি আরও বলেন, বর্ষাকাল শুরু হওয়ার পর দেশে মশাবাহিত রোগটির প্রাদুর্ভাব বাড়ার প্রবণতা দেখা যাচ্ছে। এ অবস্থায় জ্বর নিয়ে কোনো রোগী হাসপাতালে এলেই তাকে করোনাভাইরাসের নমুনা পরীক্ষার পাশাপাশি ডেঙ্গু পরীক্ষাও করতে হবে। এ বিষয়ে দেশের সব সরকারি হাসপাতালের পরিচালক, সিভিল সার্জন, তত্ত্বাবধায়ক, উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তাসহ সংশ্লিষ্টদের কাছে নির্দেশনা পাঠানো হয়েছে। নাজমুল ইসলাম আরও বলেন, সরকারের তরফ থেকে করোনাভাইরাস ও ডেঙ্গু, দুটো পরীক্ষাই বিনামূল্যে করা হচ্ছে। তাই সাধারণ মানুষের কাছেও আমাদের নির্দেশনা হলো; জ্বর হলেই এ দুটো পরীক্ষা অবশ্যই করাবেন। আরও পড়ুন: দেশে আবারও বাড়ল করোনায় শনাক্ত-মৃত্যু এদিকে সারা দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনাভাইরাসে মারা গেছেন আরও ১০ জন। এ নিয়ে এখন পর্যন্ত দেশে করোনায় মোট মৃতের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ২৭ হাজার ৭৬৮ জনে। রোববার (১৭ অক্টোবর) বিকেলে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়। বিজ্ঞপ্তিতে দেওয়া পরিসংখ্যান অনুযায়ী, দেশে নতুন করে করোনা শনাক্ত হয়েছে আরও ৩১৪ জনের দেহে। এ নিয়ে মোট করোনা আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়াল ১৫ লাখ ৬৫ হাজার ৪৮৮ জনে। বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, গত ২৪ ঘণ্টায় নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে ১৮ হাজার ৯৭ জনের। নমুনা পরীক্ষায় শনাক্তের হার ১ দশমিক ৭৪ শতাংশ। ২৪ ঘণ্টায় সুস্থ হয়েছেন আরও ৫২৯ জন। মোট সুস্থ ১৫ লাখ ২৭ হাজার ৮৬২ জন। এর আগে শনিবার (১৬ অক্টোবর) সারা দেশে ২৪ ঘণ্টায় করোনাভাইরাসে মারা যায় ৬ জন। করোনা শনাক্ত হয় ২৯৩ জনের দেহে। এদিকে বিশ্বব্যাপী করোনার পরিসংখ্যান রাখা ওয়েবসাইট ওয়ার্ল্ডওমিটারের তথ্যানুযায়ী, করোনায় এখন পর্যন্ত সংক্রমণ ছাড়িয়েছে ২৪ কোটি, মৃতের সংখ্যা ৫০ লাখ ছুঁই ছুঁই আর সুস্থ হয়েছেন প্রায় ২২ কোটি মানুষ। বাংলাদেশ সময় রোববার (১৭ অক্টোবর) সকাল ৮টা পর্যন্ত পূর্ববর্তী ২৪ ঘণ্টায় বিশ্বে মৃত্যু আরও কমেছে। এ সময় মৃত্যু হয়েছে ৫ হাজার ৩৫৮ জনের, শনাক্ত হয়েছে ৩ লাখ ৪৩ হাজার ৩১৮ জন। এর আগে শনিবার (১৬ অক্টোবর) সকাল ৮টা পর্যন্ত পূর্ববর্তী ২৪ ঘণ্টায় বিশ্বে মৃত্যু হয়েছে ৬ হাজার ৯৫৮ জনের, শনাক্ত হয়েছে ৪ লাখ ৩৫ হাজার ৫৪৪ জন। শুক্রবার (১৫ অক্টোবর) সকাল ৮টা পর্যন্ত পূর্ববর্তী ২৪ ঘণ্টায় বিশ্বে মৃত্যু হয়েছিল ৭ হাজার ৪২১ জনের, শনাক্ত হয়েছে ৩ লাখ ৯৯ হাজার ৫৬৮ জন। এখন পর্যন্ত করোনায় মোট মারা গেছেন ৪৯ লাখ ৯ হাজার ৬৫৩ জন এবং আক্রান্ত হয়েছেন ২৪ কোটি ১১ লাখ ৫০ হাজার ৬৪৪ জন। এদের মধ্যে সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন ২১ কোটি ৮৩ লাখ ৯৪ হাজার ৪৩৩ জন। করোনায় এখন পর্যন্ত সবচেয়ে বেশি সংক্রমণ ও মৃত্যু হয়েছে বিশ্বের ক্ষমতাধর দেশ যুক্তরাষ্ট্রে। তালিকায় শীর্ষে থাকা দেশটিতে এখন পর্যন্ত করোনায় সংক্রমিত হয়েছে ৪ কোটি ৫৭ লাখ ৭৪ হাজার ১৭৫ জন। মৃত্যু হয়েছে ৭ লাখ ৪৪ হাজার ৩৮৫ জনের। আক্রান্তে দ্বিতীয় এবং মৃত্যুতে তৃতীয় অবস্থানে থাকা ভারতে এখন পর্যন্ত করোনায় ৩ কোটি ৪০ লাখ ৬৬ হাজার ৭৬০ জন সংক্রমিত হয়েছেন। মৃত্যু হয়েছে ৪ লাখ ৫২ হাজার ১৫৬ জনের। আক্রান্তে তৃতীয় ও মৃত্যুতে দ্বিতীয় অবস্থানে থাকা ব্রাজিলে এখন পর্যন্ত মোট সংক্রমিত হয়েছেন ২ কোটি ১৬ লাখ ৩৮ হাজার ৭২৬ জন এবং এখন পর্যন্ত মোট মৃত্যু হয়েছে ৬ লাখ ৩ হাজার ১৯৯ জনের। আক্রান্তের দিক থেকে চতুর্থ স্থানে থাকা যুক্তরাজ্যে এখন পর্যন্ত করোনায় সংক্রমিত হয়েছেন ৮৪ লাখ ৪ হাজার ৪৬৯ জন। এর মধ্যে মারা গেছেন এক লাখ ৩৮ হাজার ৫২৭ জন। পঞ্চম স্থানে থাকা রাশিয়ায় এখন পর্যন্ত করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ৭৯ লাখ ৫৮ হাজার ৩৮৪ জন। মারা গেছেন ২ লাখ ২২ হাজার ৩১৫ জন। আক্রান্তের তালিকায় তুরস্ক ষষ্ঠ, ফ্রান্স সপ্তম, ইরান অষ্টম, আর্জেন্টিনা নবম এবং স্পেন দশম অবস্থানে রয়েছে। এ তালিকায় বাংলাদেশে অবস্থান দাঁড়িয়েছে ২৯তম। ২০১৯ সালের ডিসেম্বরের শেষ সপ্তাহে চীনের হুবেই প্রদেশের উহান থেকে করোনাভাইরাস সংক্রমণ শুরু হয়। এখন পর্যন্ত বাংলাদেশসহ বিশ্বের ২২৩টি দেশ ও অঞ্চলে ছড়িয়ে পড়েছে কোভিড-১৯






«
Next
Newer Post
»
Previous
Older Post

No comments:

Leave a Reply