Sponsor



Slider

বিশ্ব

জাতীয়

রাজনীতি


খেলাধুলা

বিনোদন

ফিচার


যাবতীয় খবর

জিওগ্রাফিক্যাল

ফেসবুকে মুজিবনগর খবর

» » » » অনলাইন বা ই-কমার্স বাণিজ্যে প্রতারণা রোধে পুলিশের পক্ষ থেকে ১৯টি প্রস্তাব বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়েছ




অনলাইন বাণিজ্যে প্রতারণা রোধে পুলিশের ১৯ প্রস্তাব

ে। পুলিশের এ প্রস্তাবে প্রতারণা ঠেকাতে টাস্কফোর্স গঠনের সুপারিশও করা হয়েছে। পুলিশ হেডকোয়ার্টার্স প্রস্তাবটি যাচাই করে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ে পাঠিয়েছে। এখন বাণিজ্য মন্ত্রণালয় পুলিশের ওই প্রস্তাবের আলোকে কোনো কোনো সুপারিশ বাস্তবায়ন করা যায় তা পর্যালোচনা করে দেখছে। কিছুদিন আগে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ ই-কমার্স প্রতারণা ঠেকাতে এ ধরনের একটি প্রস্তাব পুলিশ হেডকোয়ার্টার্সে পাঠায়। প্রস্তাবে বলা হয়, ডিজিটাল মাধ্যমে ওষুধ এবং চিকিৎসাসামগ্রী ক্রয়-বিক্রয়ের ক্ষেত্রে ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তরের লাইসেন্স গ্রহণ এবং কোনো দাহ্যপ্রদার্থ ক্রয় বিক্রয়ের ক্ষেত্রেও বিস্ফোরক অধিদপ্তরের লাইসেন্স গ্রহণ বাধ্যতামূলক করতেও প্রস্তাব করা হয়েছে। সেই সাথে ডিজিটাল কমার্স প্রতিষ্ঠানগুলো যেন সরকারের পূর্বানুমোদন ছাড়া অনলাইনে কোনো ধরনের লটারি বা র‌্যাফল ড্রয়ের আয়োজন করতে না পারে সেদিকেও নজর দেওয়ার সুপারিশ করা হয়েছে। পুলিশের ১৯ প্রস্তাবের মধ্যে আরও রয়েছে, ডিজিটাল কমার্স পরিচালনা নির্দেশিকা, ২০২১ এর নীতিমালা অনুসারে ই-কমার্স প্রতিষ্ঠানগুলো তাদের কার্যক্রম পরিচালনা করছে কিনা তা নজরে রাখা। যে কোনো বিজ্ঞাপনে প্রলোভিত না হয়ে মার্কেটপ্লেস যাচাই করে পণ্য অর্ডার মূল্য পরিশোধের পরিবর্তে ক্যাশ অন ডেলিভারি অর্থাৎ পণ্য বুঝে পেয়ে মূল্য পরিশোধ করা। ওয়েবসাইট, মার্কেটপ্লেস বা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে পণ্য ও সেবা ক্রয়-বিক্রয়ের জন্য উপস্থাপনের ক্ষেত্রে পণ্য ও সেবা সংশ্লিষ্ট সব বিবরণ ও শর্তাবলি যেমন- পণ্য ও মূল্য ফেরতের শর্তাবলি, পরিবর্তন, সরবরাহের সময়সীমা ইত্যাদি বিষয়ে সব শর্তাবলি সুস্পষ্টভাবে উল্লেখ করার ব্যবস্থা রাখা। কোনো প্রতিষ্ঠান ডিজিটাল কমার্স বা ই-কমার্সের মাধ্যমে মাল্টি লেভেল মার্কেটিং (এমএলএম) ব্যবসা পরিচালনা করছে কিনা তা কঠোরভাবে দেখা। বিক্রেতাদের আর্থিক সুবিধার্থে পণ্য বিক্রয়ের ১০ কর্ম দিবসের মধ্যে প্রযোজ্য কমিশন ও সরবরাহ চার্জ কেটে রেখে বিক্রেতাপূর্ব মূল্য পরিশোধ কঠোরভাবে মেনে চলার ব্যবস্থা রাখা। পণ্যের সম্পূর্ণ মূল্যে পরিশোধ করা হয়ে থাকলে ক্রেতা ও বিক্রেতা একই শহরে অবস্থান করলে ক্রয়াদেশ গ্রহণের পরবর্তী সর্বোচ্চ ৫ দিন এবং ভিন্ন শহরে বা গ্রামে অবস্থিত হলে সর্বোচ্চ ১০ দিনের মধ্যে পণ্য ডেলিভারি প্রদান বাধ্যতামূলক করা। পণ্যের অর্ডার নেওয়া পূর্বক পণ্য স্টকে আছে কিনা তা নিশ্চিত করা, প্রত্যেকটি প্রতিষ্ঠানের যথাযথ মনিটরিংয়ের জন্য আলাদা কমিটি গঠন করা, সারা দেশে ই-কমার্সের নামে যে আগ্রাসী মার্কেটিংয়ের দিকে ক্রেতা ও বিক্রেতারা যেন ঝুঁকতে না পারে সেদিকে নজর রাখা। সরকার কর্তৃক নিয়মিত ই-কমার্স প্রতিষ্ঠানগুলোয় অডিট করে তাদের কার্যক্রম নজরদারিতে রাখারও প্রস্তাব করা হয়েছে পুলিশের পক্ষ থেকে। পুলিশের পক্ষ থেকে আরও প্রস্তাব করা হয়েছে, গ্রাহকের অর্থ যাতে অন্যত্র আত্মসাৎ না হয় তা রোধে কার্যকর ব্যবস্থা রাখা, যে সব ই-কমার্স প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে অভিযোগ রয়েছে, সেসব প্রতিষ্ঠানের মালিক ও কর্মকর্তাদের বিদেশ ভ্রমণে সাময়িক নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা, ই-কমার্স গুলোকে মনিটরিং করার জন্যে ই-কমার্স নিয়ন্ত্রণকারী কর্তৃপক্ষ প্রতিষ্ঠা করা, ই-কমার্স প্রতিষ্ঠান নিয়ে ডিজিটাল কমার্স পরিচালনা নির্দেশিকা ২০২১ নামে একটি নীতিমালা কার্যকর থাকলেও সুনির্দিষ্ট কোনো আইন নেই। এ ক্ষেত্রে ‘ডিজিটাল ই-কমার্স অ্যাক্ট’ নামে একটি আইন প্রণয়ন করা এবং ক্যাশ অন ডেলিভারি চালুর ব্যবস্থা গ্রহণ।






«
Next
Newer Post
»
Previous
Older Post

No comments:

Leave a Reply