Sponsor



Slider

বিশ্ব

জাতীয়

রাজনীতি


খেলাধুলা

বিনোদন

ফিচার


যাবতীয় খবর

জিওগ্রাফিক্যাল

ফেসবুকে মুজিবনগর খবর

» » » » ছাই আর তেলের স্তরে প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চল




সুনামির প্রভাবে প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলে ভয়াবহ পরিবেশ বিপর্যয় দেখা দিয়েছে। পরিবেশবিদ ও জাতিসংঘ এমন পরিস্থিতিতে উদ্বেগ জানিয়েছে। টোঙ্গা ও পেরুর সমুদ্রতীরবর্তী অঞ্চল এখনো তেল ও কালো পানিতে ছেয়ে আছে। এদিকে, টোঙ্গায় ছাইয়ের পরিমাণ বেড়ে যাওয়ায় ব্যহত হচ্ছে উদ্ধার তৎপরতা। অঞ্চলটিতে এরইমধ্যে সহায়তা পাঠিয়েছে নিউজিল্যান্ড ও অস্ট্রেলিয়া সরকার। পেরুর সমুদ্র উপকূলে যতদূর চোখ যায় শুধু তেলের ভারী স্তর ও কালো পানি। টোঙ্গায় সুনামির প্রভাবেই ভয়াবহ পরিবেশগত বিপর্যয় দেখা দিয়েছে সেখানে। সমুদ্রের পানি দূষিত হওয়ায় মারা যাচ্ছে মাছ ও অন্যান্য সামুদ্রিক প্রাণী। কেবল টোঙ্গা বা পেরু নয়, প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলের অনেক এলাকায় এমন বিপর্যয় দেখা দিয়েছে। পেরুর ভেন্টালিনা উপকূলের অবস্থা সবচে ভয়াবহ। সেখানে জরুরিভিত্তিতে তেলের আস্তরণ পরিষ্কারে নির্দেশ দিয়েছে স্থানীয় কর্তৃপক্ষ। পুরো অঞ্চলে জরুরি অবস্থা জারি করা হয়েছে, যাতে সেনাবাহিনীর সদস্যরা এসে তাদের প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র ব্যবহার করে ভেন্টানিলার সমুদ্রতীরবর্তী এলাকা পরিষ্কার করতে পারে। আরও পড়ুন: টোঙ্গায় সুনামি: স্বাস্থ্য ও পরিবেশ ঝুঁকি চরমে সুনামির প্রভাবে প্রশান্তমহাসগরীয় অঞ্চল ‌‌‌‌'ভয়াবহ পরিবেশগত' বিপর্যয়ের মুখে পড়েছে জানিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন পরিবেশবিদরা। টোঙ্গায় এখনো এক লাখের বেশি মানুষ ছাইয়ের ভারী স্তরে ডুবে আছে। এতে উদ্ধার তৎপরতা ব্যাহত হচ্ছে বলে জানিয়েছে স্থানীয় কর্তৃপক্ষ। সুনামির দাপটে ধ্বসংস্ততূপে পরিণত হয়েছে টোঙ্গা। অসংখ্য ঘরবাড়ি ধ্বংস হয়েছে। এখনো যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন রয়েছে সেখানকার মানুষ। এদিকে, সেখানে জাতিসংঘের কর্মীরা থাকায় তাদের নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছে সংস্থাটি। জাতিসংঘের আবাসিক সমন্বয়কারী জোনাথন ভিটচ বলেন, টোঙ্গায় এখনো ইন্টারনেট সংযোগ বন্ধ রয়েছে। এতে ব্যাহত হচ্ছে স্থানীয় ও আন্তর্জাতিক পর্যায়ে যোগাযোগ ব্যবস্থা। তবে আমি নিশ্চিত করতে চাই টোঙ্গার বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে কাজ করা জাতিসংঘের কর্মীরা এখনো নিরাপদে রয়েছেন। আমরা ভেবেছিলাম শিগগিরই সেখান বিমানবন্দর সচল হবে, কিন্তু বিপুল পরিমাণ ছাইয়ের কারণে তা সম্ভব হচ্ছে না। প্রতিনিয়তই ছাই ভেসে আসছে। এদিকে মানবিক সহায়তা দিতে বিশুদ্ধ খাবার পানি ও অন্যান্য প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র নিয়ে টোঙ্গা রওয়ানা হয়েছে নিউজিল্যান্ড ও অস্ট্রেলিয়ার কয়েকটি জাহাজ।






«
Next
Newer Post
»
Previous
Older Post

No comments:

Leave a Reply