Sponsor



Slider

বিশ্ব

জাতীয়

রাজনীতি


খেলাধুলা

বিনোদন

ফিচার


যাবতীয় খবর

জিওগ্রাফিক্যাল

ফেসবুকে মুজিবনগর খবর

» » » » » ওমিক্রন নিয়ে আশার বাণী শোনালেন চিকিৎসকরা




যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্যসহ গোটা বিশ্বে উর্ধ্বমুখী ওমিক্রন গ্রাফ। ভারতেও একই অবস্থা। করোনার এই নতুন প্রজাতি কী ডেল্টার মতোই ভয়ংকর? সাধারণ মানুষের মধ্যে যখন এই প্রশ্ন ঘুরপাক খাচ্ছে তখন আশার বাণী শোনালেন ইসরায়েলের চিকিৎসক আফসাইন এমরানি। খবর জি২৪ ঘণ্টার। টুইটারে এমরানি লেখেন, ওমিক্রন আসলে একটি ভ্যাকসিন। এই ভ্যাকসিন কোনো সংস্থা বানাতে পারেনি। অক্সিজেন লাগে না, কোনো গুরুতর রোগী নেই, হাসপাতালের প্রয়োজন কম। এটা গণমানুষের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা তৈরি করবে। ডেল্টার জায়গা নিয়ে নেবে এটি। মাত্র ৮ থেকে ১২ সপ্তাহের মধ্যে গোটা বিশ্বে ওমিক্রনের মাধ্যমে টিকাকরণ হয়ে যাবে। আতঙ্কিত হওয়ার কোনো কারণ নেই। প্রকৃতির কাছে কৃতজ্ঞ থাকা উচিত। এটা আসলে একটা আশীর্বাদ। আমরা ভাগ্যবান। আফসাইন এমরানির সঙ্গে একমত বহু চিকিৎসক। কোভিড বিশেষজ্ঞ কলকাতার যোগীরাজ রায় বলেন, ওমিক্রন একটা মাইল্ড ডিজিজ। আমাদের এখানে বেশির ভাগই ডেল্টায় আক্রান্ত হয়েছে বলে মনে করা হচ্ছে। সাধারণত ৭ থেকে ১৪ দিনের মধ্য়ে শরীরে অক্সিজেন কমতে থাকে। ফলে আরও দু'সপ্তাহের মধ্যে বুঝতে পারব এই সার্জটাও অক্সিজেন কমিয়ে দিচ্ছে কি না। যদি অক্সিজেন কমে যাওয়ার দিকে না যায় এবং ওমিক্রন দিয়েই সবার কোভিড হয়ে যায়, তবে আমারা একটা ইমিউনিটি পেয়ে যেতে পারি। কোভিড হয়ে সবার শরীরে রিয়েল ইমিউনিটি তৈরি হয় এবং আমরা ভ্যাকসিন পেয়েছি। ফলে মিশ্র ইমিউনিটি তৈরি হলে, এর চেয়ে ভাল আর কী হতে পারে? আরও পড়ুন: ইউরোপে ভয়ংকর রূপ নিচ্ছে করোনা, শনাক্ত ১০ কোটি ইতিমধ্যে ওমিক্রন আক্রান্তদের চিকিৎসা করেছেন ডাক্তার সায়ন চক্রবর্তী। তিনি বলেন, দ্বিতীয় ঢেউয়ের সময় যা দেখেছি তা থেকে বলা যায়, ডেল্টা অনেক বেশি ভয়ংকর এবং তখন আক্রান্তের সংখ্যাও বেশি ছিল। ওমিক্রনের ভয়াবহতা অনেকটাই কম। সাধারণ সর্দি, কাশি, জ্বরের মতো মৃদু উপসর্গ থাকছে। কেবল আমরা নই, বিদেশি রিপোর্টও তাই বলছে। চিকিৎসক শাশ্বতী সিনহা বলেন, এখন পর্যন্ত চারজন ওমিক্রন আক্রান্তের চিকিৎসা করেছি। সকলের মৃদু উপসর্গ ছিল। ক্রিটিক্যাল কিছু হয়নি। কাশি, সর্দি, জ্বর এমন মৃদু উপসর্গ থাকছে। বিদেশি রিপোর্টও বলছে, ওমিক্রন মৃদু উপসর্গযুক্ত, তবে ছড়ায় তাড়াতাড়ি। দ্বিতীয় ঢেউয়ের সময় ডেল্টায় ভয়ংকর রূপ দেখেছি। তুলনায় ওমিক্রন অনেকটাই কম ভয়ংকর। এইরকম থাকলে ভালো।






«
Next
Newer Post
»
Previous
Older Post

No comments:

Leave a Reply