Sponsor



Slider

বিশ্ব

জাতীয়

রাজনীতি


খেলাধুলা

বিনোদন

ফিচার


যাবতীয় খবর

জিওগ্রাফিক্যাল

ফেসবুকে মুজিবনগর খবর

» » » » বিরাট' বিতর্কের মধ্যে কেমন আছেন Kohli? জানালেন Rahul Dravid




টেস্ট ব্যাটিংয়ের 'বিগ থ্রি'র অফ ফর্ম নিয়ে চিন্তিত নন রাহুল দ্রাবিড়। নিজস্ব প্রতিবেদন: দক্ষিণ আফ্রিকা (South Africa) উড়ে যাওয়ার আগে ভার্চুয়াল সাংবাদিক সম্মেলনে বিস্ফোরণ ঘটিয়েছিলেন বিরাট কোহলি (Virat Kohli)। একদিনের দলের অধিনায়কত্ব থেকে তাঁকে সরিয়ে দেওয়া নিয়ে বিসিসিআই-এর (BCCI) দিকে ক্ষোভ উগরে দিয়েছিলেন তিনি। পরোক্ষ ভাবে তাঁর অভিযোগ ছিল বোর্ড সভাপতি সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়ের (Sourav Ganguly) দিকেই। একে তো সেই ২০১৯ সাল থেকে টেস্টে তাঁর ব্যাট থেকে শতরান আসেনি। এর মধ্যে আবার গত বছর বিদেশে খেলা দশ ইনিংসে অফ স্টাম্পের বাইরে বলে অহেতুক খোঁচা দিতে গিয়ে তিনি আউট হয়েছেন। সেঞ্চুরিয়ানের দুই ইনিংসে সেই ভুল আরও প্রকট হয়েছিল। তবুও ফের একবার কোহলির পাশে দাঁড়ালেন হেড কোচ রাহুল দ্রাবিড় (Rahul Dravid)। ৩ জানুয়ারি জোহানেসবার্গের ওয়ান্ডারার্সে দ্বিতীয় টেস্টে খেলতে নামবে টিম ইন্ডিয়া (Team India)। এর আগে ভার্চুয়াল সাংবাদিক সম্মেলনে এসেছিলেন দ্রাবিড়। তাঁকে সরাসরি প্রশ্ন করা হয়, 'সাম্প্রতিক বিতর্কের জন্য কোহলি কি চাপে আছেন?' যদিও বিতর্ক থেকে শত হস্ত দূরে থাকা দ্রাবিড় বলেন, "আমি জানি বাইরে ওকে নিয়ে অনেক কথাবার্তা হচ্ছে। এমনকী এই টেস্টে খেলার আগেও ওকে নিয়ে চর্চা চলছে। কিন্তু সত্যি বলতে, মানসিক দিক থেকে দল অনেক ভাল জায়গায় রয়েছে এবং খোদ দলের নেতাই এ ব্যাপারে বাকিদের নেতৃত্ব দিচ্ছে।" Cheteshwar Pujara দল যে গত টেস্টে জোরে বোলারদের উপর ভর করে টেস্ট জিতেছে সেটা স্কুলে যাওয়া ছেলেও জানে। তবে রাহুলের বিশ্বাস কোহলি খুব দ্রুত পুরনো মেজাজে ফিরবেন। ম্যাচে রান না পেলেও কোহলির প্রস্তুতি দেখেও মুগ্ধ দ্রাবিড়। তিনি ফের যোগ করেন, "গত ২০ দিন ধরে আমরা এখানে আছি এবং বিরাট যেভাবে ওর প্রস্তুতি সেরেছে, দলের সকলের সঙ্গে মিশেছে, সেটা এককথায় দারুণ। আমরা কোচ হিসেবে দলের প্রস্তুতিটা যাতে ভাল ভাবে হয়, সেই দিকেই নজর দিই। সেই মর্মে বিরাট যেভাবে নেতৃত্ব দিয়েছে দলকে তা অনবদ্য। ও একজন সত্যিকারের নেতা। ওর প্রস্তুতি এবং দায়বদ্ধতা নিয়ে কোন প্রশংসাই যথেষ্ট নয়।" তবে শুধু তো কোহলি নন, দলের বাকি দুই সিনিয়র ব্যাটার চেতেশ্বর পূজারা ও অজিঙ্কা রাহানের রানের খরা চলছেই। গত দুই বছর ব্যাটে বড় রান নেই। 'চে পূজারা' পদবী যেন এখন ইতিহাস হয়ে গিয়েছে। অনেকের মতে ওয়ান্ডারার্সে ব্যর্থ হলেই তাঁকে ছেঁটে ফেলা হবে। তবে একই সঙ্গে এই মাঠে রয়েছে তাঁর সুখের স্মৃতি। ২০১৩ সালে প্রোটিয়াসদের বিরুদ্ধে প্রথম ইনিংসে ২৫ রান করার পর দ্বিতীয় ইনিংসে তাঁর ব্যাট থেকে এসেছিল ১৫৩ রান। ২০১৮ সালেও ওয়ান্ডারার্সের বাইশ গজ তাঁর কাছে পয়া হয়ে ধরা দিয়েছিল। সে বার তৃতীয় টেস্টের প্রথম ইনিংসে ৫০ রান করেছিলেন। ভারত ৬৩ রানে জিতেছিল সেই টেস্ট। পূজারার এখানে দুই টেস্টের চার ইনিংসে করেছেন ২২৯ রান। সর্বোচ্চ ১৫৩ রান। সঙ্গে রয়েছে একটি শতরান ও একটি অর্ধ শতরান। গড় ৫৭.২৫।






«
Next
Newer Post
»
Previous
Older Post

No comments:

Leave a Reply