Sponsor



Slider

বিশ্ব

জাতীয়

রাজনীতি


খেলাধুলা

বিনোদন

ফিচার


যাবতীয় খবর

জিওগ্রাফিক্যাল

ফেসবুকে মুজিবনগর খবর

» » » » বরিসকে প্রশ্নের মুখে ফেলে দলত্যাগ টোরি এমপির




টোরি এমপি ক্রিশ্চিয়ান ওয়েকফোর্ড লেবার পার্টিতে যোগ দিয়েছেন। একইসঙ্গে বরিস জনসনকে প্রধানমন্ত্রী পদ ছেড়ে দেওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন। বরিসকে প্রশ্নের মুখে ফেলে দলত্যাগ টোরি এমপির ওয়েকফোর্ড ২০১৯ সালের সাধারণ নির্বাচনে লেবার থেকে ব্যুরি সাউথ আসনে জয় লাভ করেছিলেন। ডাউনিং স্ট্রিটে কড়া লকডাউনে পার্টির বিষয়ে ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রীর প্রতি অনাস্থার চিঠি লিখেছিলেন এমন এমপিদের মধ্যে ওয়েকফোর্ড ছিলেন। জনসন যখন লেবার পার্টির নেতা স্যার কিয়ার স্টারমারের মুখোমুখি; সে সময়ই ওয়েকফোর্ড দল ত্যাগ করলেন। একটি চিঠিতে প্রধানমন্ত্রীকে ওয়েকফোর্ড বলেছেন, আপনি (বরিস) ও সামগ্রিকভাবে কনজারভেটিভ পার্টি যুক্তরাজ্যের প্রাপ্য নেতৃত্ব ও সরকার দিতে অসমর্থতা দেখিয়েছেন। তিনি লিখেছেন, লেবার পার্টি যুক্তরাজ্যে বিকল্প সরকার দিতে প্রস্তুত। এর ফলে দেশের মানুষ গর্ব করতে পারবে। কোনো বিব্রতকর পরিস্থিতিতেও পড়বে না। লেবার নেতা কিয়ার স্টারমারের নেতৃত্বেই এই পরিবর্তন হতে পারে। আরও পড়ুন: সাধারণ রোগে রূপ নেবে করোনা, আশা ফাউচির ওয়েকফোর্ডের এই বিবৃতিকে স্বাগত জানিয়েছেন স্যার কিয়ার বলেন, ব্রিটেন এখন জীবনযাপনে সংকটে পড়েছে। কিন্তু এই টোরি সরকার ঘুমিয়ে আছে। নিজেদের তৈরি বিশৃঙ্খলায় বিভ্রান্ত হয়ে আছে। এসব বিষয়ে বরিস জানিয়েছেন, ব্যুরি সাইথে এই প্রধানমন্ত্রীর অধীনে কনজারভেটিভ পার্টি এই আসনে জিতেছিল। আগামী নির্বাচনে এই আসনে আমরা আবার জিতব। এর জবাবে কিয়ার বলেন, ব্যুরি সাইথ এখন লেবারের আসন। একইসঙ্গে তার দলে যোগদানের জন্য ওয়েকফোর্ডকে স্বাগত জানিয়েছেন। ২০২০ সালের মে মাসে করোনা বিধিনিষেধ লঙ্ঘন করে একটি পার্টিতে যোগ দেওয়ায় ক্ষমা চেয়েছেন বরিস জনসন। এরপরও বৃটিশ নাগরিক ও রাজনীতিবিদদের তীব্র সমালোচনার মুখে রয়েছেন তিনি। তিনি মহামারিকালে বিধিনিষেধকে তাচ্ছিল্য করেছেন। এজন্য কনজারভেটিভ দলেরও কয়েকজন নেতা তার পদত্যাগ দাবি করেছেন। তাদের মতে, বরিস যদি এই ক্ষোভ দমন করতে না পারেন তাহলে তার পদত্যাগ করা উচিত।






«
Next
Newer Post
»
Previous
Older Post

No comments:

Leave a Reply