Sponsor



Slider

বিশ্ব

জাতীয়

রাজনীতি


খেলাধুলা

বিনোদন

ফিচার


যাবতীয় খবর

জিওগ্রাফিক্যাল

ফেসবুকে মুজিবনগর খবর

» » » » করোনা আক্রান্ত সন্দেহ হলেই ধাতব বাক্সে ঢোকাচ্ছে চীন!




বিশ্বব্যাপী ফের করোনার প্রকোপ বাড়তে শুরু করেছে। করোনাভাইরাসের নতুন ধরন ওমিক্রন রুখতে অন্যান্য দেশের মতো চীনও কঠোর লকডাউনের পথে হেঁটেছে। দেশটিতে নিয়মের কড়াকড়ি এতটাই ভয়ঙ্কর যে, শুনলেই চমকে উঠবেন। চীনে করোনা আক্রান্ত সন্দেহ হলেই তাকে, এমনকি গোটা এলাকায় একজনের রিপোর্ট পজিটিভ এলেও সকলকে ধাতব বাক্সে কমপক্ষে ৭ দিন বাধ্যতামূলক আইসোলেশনে রাখার মতোই ভয়ঙ্কর দৃশ্য ছড়িয়ে পড়েছে চীনে। সম্প্রতি করোনা সংক্রমণ রুখতে নিজেদের নীতিতে বেশ কিছু পরিবর্তন এনেছে চীনা কর্তৃপক্ষ। এ ধাতব বাক্সে বসবাস সেই পরিবর্তনে নতুন সংযোজন। বৃহস্পতিবার (১৩ জানুয়ারি) এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানিয়েছে ভারতীয় সংবাদমাধ্যম এনডিটিভি। আরও পড়ুন: ওমিক্রনের তাণ্ডবে করোনা শনাক্তের বিশ্ব রেকর্ড আক্রান্ত ব্যক্তি বা সন্দেজনক করোনা রোগীদের ধাতব বাক্সে বসবাসে বাধ্য করার বেশ কয়েকটি ভিডিও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়েছে। ভিডিওতে দেখা যাচ্ছে, করোনা আক্রান্ত ব্যক্তিদের বা তাদের সংস্পর্শে আসা সকলকে ধাতব বাক্সের মতো ঘরে ঢুকিয়ে দেওয়া হচ্ছে। সেখানে একটি খাট, পানির বোতল ও একটি শৌচাগার রয়েছে। প্রতিবেদনটিতে আরও বলা হয়েছে, চীনের মধ্যাঞ্চলীয় শাংসি প্রদেশের জিয়ান শহরে খোলা হয়েছে এই আইসোলেশন ক্যাম্প। সেখানে শিশু থেকে শুরু করে বয়স্ক, এমনকি গর্ভবতী নারীদেরও অন্তত দু’সপ্তাহের জন্য জোর করে রাখা হচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছে। এছাড়া ভাইরাল হওয়া ভিডিওতে অস্থায়ী এই কোয়ারেন্টাইন সেন্টারগুলোর সামনে বাসের লম্বা লাইন দেখা যাচ্ছে। আর ভেতরে রয়েছেন বহু মানুষ। চীনের জিরো কোভিড পলিসি অনুযায়ী, একজন ব্যক্তি করোনায় আক্রান্ত হলেও পুরো শহরেরই বাসিন্দাদের করোনা পরীক্ষা করানো হয়। তেমনি আবার একজনের রিপোর্ট পজেটিভ এলেই একই এলাকার সকল বাসিন্দাদেরকে ধাতব বাক্সে বন্দি করে রাখা হচ্ছে। মূলত অন্যদের মধ্যে সংক্রমণ ছড়ানো আটকাতেই এই পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে। আরও পড়ুন: ভারতে একদিনে করোনা সংক্রমণ আড়াই লাখ! করোনা সংক্রমণ ঊর্ধ্বমুখী হওয়ায় জিয়ান শহরের প্রায় দু’কোটি বাসিন্দাকে বাড়িতেই অবস্থান করতে বলা হয়েছে। এমনকি খাবার কিনতে বাইরে বেরোনোর ওপরেও নিষেধাজ্ঞা দেওয়া হয়েছে। গত সোমবার সেখানে ১৩ জন নতুন করে ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। অন্যদিকে মাত্র দু’জন ওমিক্রন আক্রান্ত রোগীর সন্ধান পাওয়ার পর চীনের আনিয়াং শহরে লকডাউন ঘোষণা করা হয়েছে। এছাড়া মাত্র তিন জন উপসর্গহীন করোনা রোগী শনাক্ত হওয়ায় ইউচোও শহরে এক সপ্তাহের কঠোর লকডাউন জারি করা হয়েছে।






«
Next
Newer Post
»
Previous
Older Post

No comments:

Leave a Reply