Sponsor



Slider

বিশ্ব

জাতীয়

রাজনীতি


খেলাধুলা

বিনোদন

ফিচার


যাবতীয় খবর

জিওগ্রাফিক্যাল

ফেসবুকে মুজিবনগর খবর

» » » » » শ্রীলঙ্কায় সহিংসতায় মৃতের সংখ্যা বেড়ে ৮




শ্রীলঙ্কায় সরকারপন্থি ও সরকারবিরোধী বিক্ষোভকারীদের মধ্যকার সংঘর্ষের ঘটনায় নিহতের সংখ্যা বেড়ে আটজনে দাঁড়িয়েছে। এ ছাড়া সংঘর্ষে দেড় শতাধিক মানুষ আহত হয়েছেন। তাদের দেশের বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। পুলিশের বরাতে মঙ্গলবার (১০ মে) এ তথ্য জানিয়েছে ভারতীয় সংবাদমাধ্যম দ্য ইকোনমিক টাইমস। এর আগে পুলিশের বরাতে টাইমস অব ইন্ডিয়ার খবরে বলা হয়েছিল, সংঘর্ষ চলাকালে কলম্বোর নিত্তাম্বুয়া এলাকায় বিক্ষোভকারীরা এমপির গাড়ি ঘিরে ধরেন। এ সময় এমপি বিক্ষোভকারীদের লক্ষ্য করে গুলি চালান। এতে দুই বিক্ষোভকারী গুরুতর আহত হন। পরে আহত দুজনের মধ্যে ২৭ বছর বয়সী এক বিক্ষোভকারী মারা যান। এএফপিকে শ্রীলঙ্কা পুলিশের এক কর্মকর্তা বলেন, ঘটনাস্থল থেকে পালিয়ে এক এমপি পার্শ্ববর্তী একটি ভবনে আশ্রয় নিয়েছিলেন। পরে হাজার হাজার বিক্ষোভকারী ওই ভবনটি ঘিরে ফেললে এমপি নিজের পিস্তল দিয়ে গুলি করেন। শ্রীলঙ্কায় চলমান আন্দোলনের মুখে সোমবার পদত্যাগ করেন প্রধানমন্ত্রী মাহিন্দা রাজাপাকসে। প্রধানমন্ত্রীর পাশাপাশি পদত্যাগ করেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী অধ্যাপক চান্না জয়সুমানাও। তাদের এই পদত্যাগের মধ্যদিয়ে নতুন মন্ত্রিসভাও ভেঙে গেছে। আরও পড়ুন: বিদায়ী প্রধানমন্ত্রী মাহিন্দা রাজাপাকসেকে নিরাপদে সরিয়ে নিয়েছে সেনারা এদিকে শ্রীলঙ্কার সদ্য পদত্যাগপত্র জমা দেওয়া প্রধানমন্ত্রী মাহিন্দা রাজাপাকসের বাসভবনে অগ্নিসংযোগ করেছিল সরকারবিরোধী বিক্ষোভকারীরা। টাইমস অব ইন্ডিয়া জানায়, সোমবার (৯ মে) রাজাপাকসে পদত্যাগপত্র জমা দেওয়ার কিছুক্ষণ পরেই তার কুরুনেগালার বাসায় অগ্নিসংযোগ করা হয়। এটি রাজাপাকসের পৈতৃক নিবাস, যা কলম্বো থেকে ২৫০ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত। সরকার সমর্থকরা পুলিশের ব্যারিকেড ভেঙে বিক্ষোভকারীদের ওপর লাঠি ও লোহার পাইপ নিয়ে ঝাঁপিয়ে পড়ে। এতে অন্তত তিনজন নিহত হয় এবং আহত হয় আরও শতাধিক। এরপর হামলাকারীদের সেখান থেকে সরাতে পুলিশ কাঁদানে গ্যাস ও জলকামান ব্যবহার করে। আরও পড়ুন: শ্রীলঙ্কায় পুড়ছে এমপি-মন্ত্রীর বাড়ি, কারফিউ জারি এর আগে সরকারবিরোধীরা শ্রীলঙ্কার মোরাতুয়ার মেয়র সমন লাল ফের্নান্দো এবং ক্ষমতাসীন দলের কয়েকজন আইনপ্রণেতার বাসভবনে অগ্নিসংযোগ করে। তারা হলেন রমেশ পাথিরানা, মাহিপালা হেরাথ, থিসা কুতিয়ারাচ্চি ও নিমল ল্যাঞ্জা। এ ছাড়াও দেশটির রাজধানী কলম্বোর মাউন্ট লেভিনিয়ায় সাবেক মন্ত্রী জনস্টন ফারনান্দো ও এমপি সনাথ নিশান্থার বাড়িতে হামলা ও আগুন ধরিয়ে দেওয়া হয়। কলম্বো ন্যাশনাল হাসপাতালের এক মুখপাত্র জানিয়েছেন, কলম্বোর সংঘর্ষের ঘটনায় অন্তত ২১৭ জন আহত ব্যক্তি হাসপাতালটিতে ভর্তি হয়েছেন। ১৯৪৮ সালে স্বাধীনতার পর সবচেয়ে বড় অর্থনৈতিক সংকটে বিপর্যস্ত শ্রীলঙ্কা। কয়েক মাস ধরে খাবার, জ্বালানি ও ওষুধের তীব্র সংকটে ভুগছে দেশটি। ভয়াবহ বিদ্যুৎবিভ্রাটের কবলে সাধারণ মানুষ। এর প্রতিবাদেই এক মাসেরও বেশি সময় ধরে সরকারের পদত্যাগের দাবিতে আন্দোলন করে আসছে সাধারণ মানুষ।






«
Next
Newer Post
»
Previous
Older Post

No comments:

Leave a Reply