Sponsor



Slider

বিশ্ব

জাতীয়

রাজনীতি


খেলাধুলা

বিনোদন

ফিচার


যাবতীয় খবর

জিওগ্রাফিক্যাল

ফেসবুকে মুজিবনগর খবর

» » » মেহেরপুর পৌর নির্বাচনে ৭ নং ওয়ার্ডের ভোটের হাওয়া




মেহেরপুর পৌর নির্বাচনে ৭ নং ওয়ার্ডের ভোটের হাওয়া মেহেরপুর পৌরসভা নির্বাচনকে কেন্দ্র করে ওয়ার্ডগুলোতে বইছে ভোটের হাওয়া। হোটেল, রেস্তোরাঁ আর চায়ের দোকানগুলোতে নির্বাচনী আলাপ–আলোচনায় মেতে উঠেছেন ভোটাররা। নির্বাচনী সভার পাশাপাশি প্রার্থীরা ভোটারদের বাড়ি বাড়ি গিয়ে ভোট চাচ্ছেন, ভোটারদের মন পেতে নানা প্রতিশ্রুতিও দিচ্ছেন। ১৫ জুন মেহেরপুর পৌরসভা নির্বাচনের ভোট গ্রহণ হবে। শেষ মুহূর্তে এসে ব্যস্ত সময় পার করছেন প্রার্থীরা। সারাদিন বিভিন্ন এলাকার পথে পথে ঘুরে গণসংযোগ ও ভোটারদের কাছে ভোট প্রার্থনা করছেন প্রার্থীরা। মেহেরপুর শহরের প্রধান সড়ক সহ পাড়া মহল্লার ওলিতে গলিতে এখন শুধুই চোখে পড়ছে প্রার্থীদের ছবি সম্বলিত পোস্টার। নির্বাচনের প্রাক্কালে কাউন্সিলর প্রার্থীদের কার কেমন অবস্থান তা নিয়ে

বিশেষ প্রতিবেদন। এ পর্যায়ে থাকছে মেহেরপুর পৌরসভার-৭ নং ওয়ার্ডের চালচিত্র। কাঁসারি পাড়া, মল্লিকপাড়া, শহীদ আরজ সড়ক উত্তরাংশ, হোটেল বাজার, কাঁসারিপাড়া, শহীদ হামিদ সড়ক, মহিলা কলেজ রোড, দিঘির পাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় পাড়া, প্রান্তিক সিনেমা হল পাড়া, সিভিল সার্জন অফিস পাড়া, ফৌজদারি পাড়া দক্ষিণাংশ, নজরুল সড়ক উত্তরাংশ, মল্লিকপাড়া নিয়ে গঠিত পৌরসভার ৭ নং ওয়ার্ড। ৭ নং ওয়ার্ডে ৫ হাজার ১১২ জন ভোটার তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করার সুযোগ পাবে। মেহেরপুর সরকারি বালক উচ্চ বিদ্যালয় মল্লিকপাড়া (পূর্ব ভবন) এবং মেহেরপুর সরকারি বালক উচ্চ বিদ্যালয় (পশ্চিমভবন) কেন্দ্রে ভোটারা তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করবেন। ৭ নং ওয়ার্ডে ভোটারদের মন জয় করতে সাবেক কাউন্সিলর নুরুল আশরাফ রাজিব (উটপাখি) , সাবেক কমিশনার মনিরুল ইসলাম(পানির বোতল) ,গত নির্বাচনে পরাজিত ইলিয়াস হোসেন (গাজর) , এসএম ফিরোজুর রহমান(পাঞ্জাবি) ,তারিকুল ইসলাম(টেবিল ল্যাম্প) প্রার্থী হয়েছেন। ৭ নং ওয়ার্ডে সাবেক কাউন্সিলর নুরুল আশরাফ রাজিব এবং ইলিয়াস হোসেনের মধ্যে মূলত লড়াই হবে এমনটাই মনে করছে এলাকাবাসী। গত নির্বাচনে জয়লাভের পর নুরুল আশরাফ রাজিব এলাকাবাসীর সঙ্গে সবসময় যোগাযোগ রাখার কারণে ভোটারদের সঙ্গে তাঁর সুসম্পর্ক রয়েছে বলে এলাকা ঘুরে জানা গেছে। ইলিয়াস হোসেন গত নির্বাচনে পরাজিত হওয়ার পর থেকে এলাকায় ঘুরতে খুব একটা দেখা যায়নি বলে ভোটাররা মত পোষণ করেছেন। তার পরেও নুরুল আশরাফ রাজিবের সাথে ইলিয়াস হোসেনের সাথে প্রতিদ্বন্দ্বীতা হবে। এর পাশাপাশি সাবেক কমিশনার মনিরুল ইসলাম,এসএম ফিরোজুর রহমান এবং তারিকুল ইসলাম ও চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন শেষ পর্যন্ত টিকে থেকে ভোটারদের মন জয় করতে।






«
Next
Newer Post
»
Previous
Older Post

No comments:

Leave a Reply