Sponsor



Slider

বিশ্ব

জাতীয়

রাজনীতি


খেলাধুলা

বিনোদন

ফিচার


যাবতীয় খবর

জিওগ্রাফিক্যাল

ফেসবুকে মুজিবনগর খবর

» » » » ইউক্রেনের খেরসনে রাশিয়ার সামরিক হামলা অব্যাহত




ইউক্রেনের খেরসন প্রদেশে রাশিয়ার সামরিক হামলা অব্যাহত আছে। ব্রিটিশ সামরিক গোয়েন্দারা শনিবার (২৩ জুলাই) জানিয়েছে, খেরসন প্রদেশের ডিনিপ্রো নদীর পশ্চিমে গেল ৪৮ ঘণ্টা ধরে লড়াই চলছে। খবর রয়টার্স। যুক্তরাজ্যের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, রাশিয়ান বাহিনী ডিনিপ্রোর উপনদী ইনগুলেটস নদীর ধারে আর্টিলারি যুদ্ধাস্ত্র ব্যবহার করছে। মন্ত্রণালয়ের একটি গোয়েন্দা প্রতিবেদন বলছে, নদীর পশ্চিমে রাশিয়ান বাহিনীর সরবরাহ লাইন ক্রমবর্ধমান ঝুঁকির মধ্যে রয়েছে। প্রতিবেদনে আরও বলা হয়েছে, অতিরিক্ত ইউক্রেনীয় হামলা মূল আন্তোনিভস্কি সেতুর আরও ক্ষতি করেছে, যদিও রাশিয়া অস্থায়ী মেরামত পরিচালনা করেছে। এর আগে মস্কোর আদেশ না মানায় ইউক্রেনের খেরসন অঞ্চলের মেয়র ইহোর কোলিখায়েভকে আটক করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন সেখানকার রাশিয়া-প্রতিষ্ঠিত কর্মকর্তারা। তারা জানান, খেরসনের মেয়রকে মঙ্গলবার (২৮ জুন) আটক করে নিরাপত্তা বাহিনী। তবে খেরসনের স্থানীয় কর্মকর্তাদের দাবি, মেয়র কোলিখায়েভকে অপহরণ করা হয়েছে। আরও পড়ুন: রাশিয়ার সঙ্গে একীভূত হবে খেরসন বার্তা সংস্থা রয়টার্স জানায়, কৃষ্ণ সাগরের একটি বন্দর শহর খেরসন। রাশিয়া-অধিভুক্ত ক্রিমিয়ান উপদ্বীপের ঠিক উত্তর-পশ্চিমে এর অবস্থান। গেল ফেব্রুয়ারিতে ইউক্রেনে সামরিক অভিযান শুরুর প্রথম সপ্তাহেই শহরটি দখল করে নেয় রুশ সেনারা। এরপর স্থানীয় জনসংখ্যার একটি বড় অংশই ওই অঞ্চল ছেড়ে চলে গেছে। অন্যদিকে চলতি বছরের শেষের দিকে অধিকৃত খেরসন রাশিয়ার সঙ্গে একীভূত করা হতে পারে। বার্তা সংস্থা রয়টার্সের খবর বলছে, রাশিয়ার সঙ্গে যুক্ত হতে প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের কাছে অনুরোধ করার পরিকল্পনা রয়েছে শহরটির কর্তৃপক্ষের। বর্তমানে শহরটি পরিচালনা করছে একটি সামরিক ও বেসামরিক প্রশাসন। গেল ২৪ ফেব্রুয়ারি প্রতিবেশী ইউক্রেনকে নিরস্ত্রিকরণ ও নতুন-নাৎসিমুক্ত করতে সামরিক অভিযান শুরু করে রাশিয়া। এরপর মস্কোর সঙ্গে একীভূত হতে যাওয়া প্রথম কোনো অঞ্চল হতে যাচ্ছে খেরসন। আরও পড়ুন: ‘কথা না শোনায়’ খেরসনের মেয়রকে তুলে নিল রুশ বাহিনী গেল এপ্রিলে খেরসনের পূর্ণ নিয়ন্ত্রণের দাবি করে রাশিয়া। অঞ্চলটিতে এখনো বিচ্ছিন্ন রুশ-বিরোধী বিক্ষোভ অনুষ্ঠিত হতে দেখা যাচ্ছে। খেরসনে একই নামে একটি সমুদ্রবন্দর রয়েছে। ক্রিমিয়া উপদ্বীপের সঙ্গে এটি সংযোগ রয়েছে। ২০১৪ সালে ক্রিমিয়া ও পূর্ব ইউক্রেনের রুশ-সমর্থিত বিদ্রোহীদের বিভিন্ন অঞ্চলের নিয়ন্ত্রণ নেয় রাশিয়া। আট বছর আগে ক্রিমিয়ার নিয়ন্ত্রণ নেওয়ার পর অঞ্চলটিকে একীভূত করতে একটি গণভোটের আয়োজন করেছিল রাশিয়া। যাতে সেখানকার অধিবাসীরা রাশিয়ার সঙ্গে যোগ দিতেই ভোট দিয়েছিলেন।






«
Next
Newer Post
»
Previous
Older Post

No comments:

Leave a Reply