Sponsor



Slider

বিশ্ব

জাতীয়

রাজনীতি


খেলাধুলা

বিনোদন

ফিচার


যাবতীয় খবর

জিওগ্রাফিক্যাল

ফেসবুকে মুজিবনগর খবর

» » » » » ইরান পরমাণু বোমা তৈরি করতে সক্ষম




ইরান যেকোনো সময় পরমাণু বোমা তৈরি করতে সক্ষম। তবে তৈরি করবে কিনা সে ব্যাপারে এখনও কোনো সিদ্ধান্ত নেয়নি। এমনটাই দাবি করেছেন দেশটির সর্বোচ্চ নেতা আয়াতুল্লাহ আলি খামেনিরি এক জ্যেষ্ঠ উপদেষ্টা। মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের মধ্যপ্রাচ্য সফরের শেষদিন রোববার (১৭ জুলাই) আল জাজিরাকে এক সাক্ষাৎকার দেন ইরানের সর্বোচ্চ নেতার উপদেষ্টা কামাল খাররাজি। সাক্ষাৎকারে তিনি বলেন, ‘অল্প কিছুদিনের মধ্যে আমরা ৬০ শতাংশ পর্যন্ত ইউরেনিয়াম সমৃদ্ধ করতে সক্ষম হব। তখন ৯০ শতাংশ পর্যন্ত ইউরেনিয়াম সমৃদ্ধকরণ আরও সহজ হবে।’ খাররাজি এরপর বলেন, ‘পরমাণু বোমা তৈরির কৌশলগত উপায় ইরানের হাতে রয়েছে। কিন্তু ইরান আদৌ বোমা বানাবে কিনা সে ব্যাপারে এখনও সিদ্ধান্ত নেয়নি তেহরান।’ এখন থেকে প্রায় সাত বছর আগে ২০১৫ সালে যুক্তরাষ্ট্রসহ ছয় বিশ্বশক্তি ও ইরানের মধ্যে এক বহুপাক্ষিক পরমাণু চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়। চুক্তির মূল লক্ষ্য ছিল, ইরানকে পরমাণু অস্ত্র তৈরি করা বিরত রাখা। আরও পড়ুন : খাশোগি হত্যাকাণ্ডে সৌদি যুবরাজকে দায়ী করলেন বাইডেন কিন্তু তিন বছর পর ২০১৮ সালে ওই চুক্তি থেকে একতরফাভাবে সরে আসার ঘোষণা দেন সাবেক মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। একই সঙ্গে ইরানের ওপর আগের সব অর্থনৈতিক নিষেধাজ্ঞা বহাল করে ওয়াশিংটন। যুক্তরাষ্ট্র চুক্তি থেকে বেরিয়ে যাওয়ার পর থেকে ইরান আস্তে আস্তে চুক্তির শর্তগুলো মানা বন্ধ করে দেয়। একই সঙ্গে ইউরেনিয়াম সমৃদ্ধকরণ বাড়াতে থাকে। চুক্তির অন্যতম শর্ত ছিল, ইরানের ইউরেনিয়াম পরিশোধনের মাত্রা ৩.৬৭ শতাংশের বেশি হবে না। কিন্তু সর্বোচ্চ নেতার উপদেষ্টার বক্তব্য অনুযায়ী, গত চার বছরে তেহরান তার ইউরেনিয়াম সমৃদ্ধকরণ ৬০ শতাংশের কাছাকাছি নিয়ে গেছে। যুক্তরাষ্ট্র চুক্তি থেকে বেরিয়ে যাওয়ার পর মার্কিন বিশ্লেষকরা বলেছিলেন, ইরান এখন ইউরেনিয়াম পরিশোধনের মাত্রা বাড়িয়ে দেবে। বোমা তৈরির উপকরণ পেতে দ্রুতই ইউরেনিয়াম পরিশোধনের কার্যকারিতা বৃদ্ধি করবে তারা। কেননা পরমাণু বোমা তৈরির ক্ষেত্রে ইউরেনিয়াম পরিশোধনের মাত্রা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। তবে যুক্তরাষ্ট্রের এ দাবি উড়িয়ে দিয়ে ইরান সেই শুরু থেকেই বলে আসছে, তেহরান কখনই পরমাণু অস্ত্র তৈরি করতে চায় না। তারা ইউরেনিয়াম সমৃদ্ধ করছে শুধুমাত্র বিদ্যুৎ উৎপাদনের লক্ষ্যে। কিন্তু তেহরানের এ বক্তব্য মানতে নারাজ ওয়াশিংটন। আরও পড়ুন : রাশিয়া থেকে দ্বিগুণ তেল আমদানি সৌদির বাইডেন যুক্তরাষ্ট্রের ক্ষমতায় আসার পর চুক্তিতে ফিরতে তেহরান ও ওয়াশিংটনের পরোক্ষ আলোচনা শুরু হয়। তবে চলতি বছরের মার্চ মাস থেকেই স্থগিত হয়ে আছে। এরই মধ্যে গত বুধবার (১৩ জুলাই) মধ্যপ্রাচ্য সফরে যান বাইডেন। সফরের দ্বিতীয় দিন বৃহস্পতিবার (১৪ জুলাই) সকালে পশ্চিম জেরুজালেমে দ্বিপাক্ষিক বৈঠকে ওই চুক্তি স্বাক্ষর করে প্রেসিডেন্ট বাইডেন ও ইসরাইলি প্রধানমন্ত্রী ইয়াইর লাপিদ। ইরানবিরোধী ওই ঘোষণায় বলা হয়েছে, ইরানকে পারমাণবিক অস্ত্রের অধিকারী হওয়া ঠেকাতে যুক্তরাষ্ট্র তার সর্বশক্তির নিয়োজিত করবে।






«
Next
Newer Post
»
Previous
Older Post

No comments:

Leave a Reply