Sponsor



Slider

বিশ্ব

জাতীয়

রাজনীতি


খেলাধুলা

বিনোদন

ফিচার


যাবতীয় খবর

জিওগ্রাফিক্যাল

ফেসবুকে মুজিবনগর খবর

» » » মেহেরপুরে হারিয়ে যাচ্ছে তাল গাছ




মেহেরপুরে গাছ ব্যাবসায়ী ও করাত কল মালিকদের রোষানলে হারিয়ে যাচ্ছে তাল গাছ তাল গাছ। পরিবেশ ও প্রকৃতির বন্ধু শুধু নয়। মানুষের কল্যাণে এর জুড়ি নেই। তালগাছ নিয়ে রচিত হয়েছে অনেক কবিতা ও গান। তাল গাছের সুমিষ্ট ফল দেয়া ছাড়াও প্রাকৃতিক দুর্যোগ থেকে রক্ষা করে মানুষকে। বর্তমান সরকার তাল গাছ রোপণের উপর জোর দিলেও এক শ্রেণির লোকজন তাল গাছ কাটার মহোৎসবে মেতে উঠেছে। নানা কারণ দেখিয়ে রাস্তার পাশের ও ব্যাক্তি মালিকানাধিন তালগাছ কেটে বিভিন্ন করাত কলে বিক্রি করছে। সরেজমিনে বিভিন্ন এলাকা ঘুরে দেখা গেছে, বন ও পরিবেশ রক্ষা ছাড়াও প্রাকৃতিক দুর্যোগ মোকাবেলায় সরকার তাল গাছ রোপণ করছেন। অপরদিকে বিভিন্ন এলাকায় তালগাছ কাটছেন করাত কলের মালিক ও কাঠ ব্যবসায়িরা। অনেকেই বিক্রি করছেন বিভিন্ন ইট ভাটায়। বিশেষজ্ঞদের মতে, তাল ও নারিকেল গাছ দেশের প্রাকৃতিক ভারসাম্য রক্ষা ও বজ্রপাত প্রতিরোধে গুরুত্বপূর্ণ ভুমিকা রাখে। গ্রাম-বাংলার ঐতিহ্য রক্ষা ও শোভা বর্ধনে তাল ও নারিকেল গাছের জুড়ি মেলেনা। এক সময় বিভিন্ন সড়ক ও মহা সড়কের পাশে সারি-সারি তাল গাছ শোভা পেতে দেখা গেছে। এখনও দু’একটা তাল গাছ গ্রাম-গঞ্জের ঝোপ-ঝাড়ে দেখা গেলেও তা রক্ষায় সরকারি ভাবে নেই তেমন উদ্যোগ। অতীতে অপরিচিত মানুষের বাড়ি, জমি, পুকুর, মাঠ, মসজিদ, মাদরাসা, স্কুল, কলেজসহ বিভিন্ন স্থান দেখানোর জন্য বলা হতো উচুঁ ওই তাল গাছ টার পাশে। এমনকি সরকারি বা বে-সরকারি ভাবে নানা দিক নির্দেশনার ক্ষেত্রেও তাল গাছের সহায়তা নেওয়া হতো। তালের পিঠা, তালের গুড়, তালের রস, সব মানুষের খুব মজাদার খাবার। বিশেষ করে অতীত সময় গুলোতে গ্রাম-বাংলায় তালের পিঠা ছাড়া আত্বীয়তা কল্পনাই করা যেত না। এছারা তাল গাছের পাতা দিয়ে তৈরী হয় নানা রকমের হাত পাখাও। ক্রমশই তাল গাছ হারিয়ে যাওয়ায় গ্রামীণ পরিবার গুলোতে নেই সেই তালের পিঠার অস্তিত্ব। সরকারি ভাবে সঠিক নজরদারির অভাবে অযতœ-অবহেলা ও গুরুতের অভাবে তাল গাছ কাটা হচ্ছে। যেভাবে তাল গাছ কাটা হচ্ছে, সেই ভাবে তালগাছ রোপন করা হচ্ছেনা বলে অভিযোগ বিভিন্ন গ্রামের বাসিন্দাদের। স্থানীয়রা জানান, তালগাছ কেটে ফেলার কারণে এলাকাবাসির অভিযোগের প্রেক্ষিতে স্থানীয় প্রশাসন গাংনীর গাড়াডোব এলাকায় তালগাছ কাটার উপর নিষেধাজ্ঞা জারি করেন। এবং কোনো করাত কলে তাল নারিকেল গাছ ফাড়াই করা নিষেধ করেন। গাছ ব্যাবসায়ীরা তাল গাছ বেচা-কেনা কয়েক সপ্তাহের জন্য বন্ধ রাখার পর প্রশাসনের নিষেধকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে স্থানীয় গাছ ব্যাবসায়ীরা তাল ও নারিকেল গাছ বেচাকেনার উৎসবে মেতে উঠেছেন। বিভিন্ন গ্রাম থেকে তাল ও নাারিকেল গাছ কেটে নিয়ে আসছে মেহেরপুরের গাংনী উপজেলার গাড়াডোব বাজারের লালা বিশ^াস ও চপল বিশ^াসের করাত কলে। সেখানে দে-দারছে ফাড়াই করা হচ্ছে তাল ও নারিকেল গাছ। আসবাবপত্রের উপকরণ তৈরী করছেন ও ইটভাটায় বিক্রি করছেন ব্যাবসায়ীরা। এব্যাপারে গাংনী উপজেলা ফরেস্টার জানান, জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে নিষেধ করা হয়েছে। তবে তারা কি কারনে তাল ও নারিকেল গাছ ফাড়াই করছেন তা সঠিক ভাবে জানা নেই। তিনি আরো বলেন, চপল বিশ^াসের করাত কলে কিছু গাছ মজুদ ছিলো , সে গুলি ফাড়াই করার পর আর নতুন করে তাল ও নারিকেল গাছ ফাড়াই করবে না বলে জানান এ কর্মকর্তা। গাংনী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা

জানান, তাল ও নারিকেল গাছ প্রাকৃতিক দুর্যোগ মোকাবেলায় গুরুত্বপূর্ণ ভৃমিকা পালন করার স্বার্থে তা রক্ষা করা অত্যান্ত জরুরী। যারা এসকল গাছ কাটা ও ফাড়াই করার সাথে জড়িত তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যাবস্থা নেয়া হবে। সেই সাথে স্থানীয় ব্যাক্তিদেরও এ সকল গাছ গাছালির রক্ষণাবেক্ষণ ও তাল নারিকেল গাছ রোপন বৃদ্ধিতে জনসচেতনতা সৃষ্টি করার পাশাপাশি সরকারি অর্থয়নে অনেক সড়কের পাশে তালগাছ রোপন করা হয়েছে।






«
Next
Newer Post
»
Previous
Older Post

No comments:

Leave a Reply