Sponsor



Slider

বিশ্ব

জাতীয়

রাজনীতি


খেলাধুলা

বিনোদন

ফিচার


যাবতীয় খবর

জিওগ্রাফিক্যাল

ফেসবুকে মুজিবনগর খবর

» » » » প্রতিটি ক্ষেত্রে বাবার পাশে ছিলেন মা: প্রধানমন্ত্রী




প্রতিটি ক্ষেত্রে বাবার পাশে ছিলেন মা: প্রধানমন্ত্রী

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তাঁর মায়ের স্মৃতিচারণা করে বলেছেন, প্রতিটি ক্ষেত্রে বাবার পাশে ছিলেন মা। তিনি সংসারটা করতেন গুছিয়ে। প্রতিটি কাজে নিয়ম মেনে চলতেন। কোনো সময় তাঁর মধ্যে হতাশা দেখিনি। ৩১ আগস্ট (বুধবার) জাতীয় শোক দিবস স্মরণে বাংলাদেশ ছাত্রলীগ কর্তৃক আয়োজিত আলোচনা সভায় তিনি এসব কথা বলেন। বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। ‘১৫ আগস্টে আমরা স্বজন হারিয়েছি ঠিকই, কিন্তু দেশ হারিয়েছে তাদের ভবিষ্যৎ’- এমন মন্তব্য করে শেখ হাসিনা বলেন, “বাবা কখনও চিন্তাই করতে পারেননি যে- কোন বাঙালি তাঁকে (বঙ্গবন্ধু) হত্যা করতে পারে।” ময়ের কথা স্মরণ করে তিনি বলেন, “মা তার শৈশব থেকেই বাবার পাশে ছিলেন। তখন থেকেই তিনি বাবাকে সহযোগিতা করে এসেছেন। বাবা বারবার কারাগারে যেতেন। কিন্তু কখনও বাবাকে সংসারের ব্যাপারে চিন্তা করতে দেননি। তিনি সব সময় বাবাকে বলতেন- তুমি রাজনীতিতে সময় দাও, আমি সংসার দেখছি। কিন্তু তিনি যে শুধু সংসারই দেখতেন তা নয়, সংগঠনেও সময় দিতেন।” প্রধানমন্ত্রী বলেন, “নানা প্রতিকুলতায় কখনও মায়ের কোন অভিযোগ, অনুযোগ দেখিনি। যখন জীবন যেমন, তখন তিনি তা মেনে নিয়েছেন।” প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, “দেশ ও স্বাধীনতার জন্য আমার বাবার যে সংগ্রাম, সেই সংগ্রামের সারথি ছিলেন আমার মা। সব সময় আমার মা বাবাকে সাহস জুগিয়েছেন। বাবাও মায়ের সঙ্গে অনেক কথা বলতেন। স্বাধীনতার জন্য সংগ্রাম মা-ই সবার আগে জানতেন।” বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের বারবার কারাবরণ, রাজনৈতিক আন্দোলন, ফজিলাতুন্নেছা মুজিবের ভূমিকা বিস্তারিত তুলে ধরেন প্রধানমন্ত্রী। ছাত্রলীগের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, “দল গঠনের জন্য মন্ত্রিত্ব ছেড়েছিলেন জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। আজকালের ছাত্রনেতারা এই ঘটনা থেকে শিক্ষা নিতে পারে। আজকে আমরা দেখি অনেকেই দল ছেড়ে দেয় মন্ত্রিত্ব করার জন্য।” সরকারপ্রধান বলেন, “রাজনীতি করতে হলে ইতিহাস জানতে হবে। ইতিহাসই তোমাদের পথ দেখাবে।” দেশ গঠনে ছাত্রলীগ সব সময় ভূমিকা রেখেছে মন্তব্য করে তিনি বলেন, “ছাত্রলীগ কৃষকের ধান কেটে দিয়েছে, প্রয়োজনে ধান লাগিয়ে দিবে। রাজনীতি করতে হলে মানুষের পাশে থাকতে হবে।” করোনা ও ইউক্রেন যুদ্ধের ফলে চলমান বিশ্ব সঙ্কটের কথা উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, “সবাইকে সাশ্রয়ি হতে হবে। প্রয়োজনে পায়ে হেঁটে চলতে হবে, এতে স্বাস্থ্য ভালো থাকে। বিশ্বব্যাপী পানির সঙ্কট চলছে, আমাদের অপচয় রোধ করতে হবে।






«
Next
Newer Post
»
Previous
Older Post

No comments:

Leave a Reply