Sponsor



Slider

বিশ্ব

জাতীয়

রাজনীতি


খেলাধুলা

বিনোদন

ফিচার


যাবতীয় খবর

জিওগ্রাফিক্যাল

ফেসবুকে মুজিবনগর খবর

» » » সভ্যতার যুগান্তকারী আবিষ্কার! এসে গেল ক্যানসারের ওষুধ, আর মৃত্যু নয় মারণরোগে...




সম্ভবত মানবসভ্যতার অন্যতম যুগান্তকারী আবিষ্কার হতে চলেছে এই চিকিৎসাপদ্ধতি। এবার হয়তো মারণ এই রোগকে বশে আনা যাবে। বাঁচানো যাবে মৃত্যুর জন্য অপেক্ষমাণ মানুষকে।ক্যানসার এমন এক মারণরোগ যা, যুগ যুগ ধরে মানবজাতির সঙ্গে রসিকতা করে আসছে। জীবন নিয়ে ছিনিমিনি খেলছে। রেয়াত করছে না কাউকে। তাকে বাগে আনা যাচ্ছে না। কিন্তু লড়াই ছাড়েনি মানুষ। সে নিত্য নব উদ্ভাবনীশক্তি দিয়ে খুঁজে চলেছে নিরাময়। সেই সন্ধানের পথ ধরেই ঘটল এই আবিষ্কার। ঘটল যুক্তরাজ্যে। সেখানকার ক্যানসার বিশেষজ্ঞরা বলছেন, ইমিউনোথেরাপি এবং পরীক্ষামূলক ওষুধ গুয়াডেসাইটাবিনের সমন্বয়ে নতুন এক চিকিৎসা- পদ্ধতি আবিষ্কার করেছেন তাঁরা। ইমিউনোথেরাপিতে ব্যবহৃত ওষুধ পেম্ব্রোলিজুমাব এবং ডিএনএ হাইমিথাইলেটিং এজেন্ট গুয়াডেসাইটাবিনের মিশ্রণ পরীক্ষামূলকভাবে কয়েকজন ক্যানসার রোগীকে দেওয়া হয়েছিল। প্রথম ধাপের পরীক্ষায় এক-তৃতীয়াংশের বেশি রোগীর শরীরে ক্যানসারের বিস্তার থামিয়ে দেওয়া গেছে বলে দেখা গিয়েছে। 'ইমিউনোথেরাপি অব ক্যানসার' নামক পত্রিকায় নতুন এ গবেষণা প্রকাশিত হয়েছে। ক্যানসারের চিকিৎসা হল মূলত প্রতিরোধশক্তিভিত্তিক চিকিৎসা। তবে যেসব ক্যানসার রোগীর ক্ষেত্রে এই পদ্ধতি কাজ করে না, তাঁদের দেহে রোগটির বিস্তার এতদিন ঠেকিয়ে রাখা যেত না। কিন্তু এবার যে নতুন চিকিৎসাপদ্ধতির আবিষ্কার ঘটল তার জেরে ওই সব রোগীর দেহেও রোগটির বিস্তার ঠেকিয়ে রাখা যাবে বলে মনে করছেন বিজ্ঞানীরা। অন্তত সেইরকমই উপযোগী এক নতুন চিকিৎসাপদ্ধতি আবিষ্কার করেছেন বলে দাবি করছেন ব্রিটেনের চিকিৎসকেরা। ক্যানসারের চিকিৎসায় প্রতিরোধী শক্তি ব্যবহার করাকে ইমিউনোথেরাপি বলা হয়। সার্জারি, রেডিওথেরাপি কিংবা কেমোথেরাপির মতো পদ্ধতিগুলি ব্যর্থ হলে ইমিউনোথেরাপি ব্যবহার করে রোগীর জীবন বাঁচানোর চেষ্টা করা হয়। এই পদ্ধতিতে রোগীর রোগ প্রতিরোধব্যবস্থা ব্যবহার করে ক্যানসারের কোষগুলিকে ধ্বংস করে দেওয়া হয়। তবে ইমিউনোথেরাপিও অনেক রোগীর ক্ষেত্রে কাজ করে না। এ পদ্ধতি ব্যবহারের পরেও মাঝেমধ্যে টিউমার বড় হয়ে যেতে পারে অনেকের। এমন অবস্থায় যুক্তরাজ্যের বিশেষজ্ঞরা এই নতুন চিকিৎসাপদ্ধতি আবিষ্কারের দাবি করেছেন। তাঁদের আশা, বর্তমান পদ্ধতিতে যাঁদের আর চিকিৎসা করা সম্ভব নয়, বিকল্প না পেয়ে যাঁরা মৃত্যুর প্রহর গুনছেন, তাঁদের আরও বেশি দিন বাঁচার সুযোগ করে দেবে এই চিকিৎসাপদ্ধতি। নতুন গবেষণার প্রধান গবেষক ড. আনা মিনচম বলেন, ইমিউনোথেরাপি গত দশক ধরে ক্যানসারের চিকিৎসায় দারুণ কার্যকারিতা দেখিয়েছে। তবে সব ধরনের ক্যানসারের চিকিৎসায় এটি তেমন ভালো কাজ করেনি। যেসব ক্যানসারের চিকিৎসায় ইমিউনোথেরাপি কাজ করে না তাদের ক্ষেত্রে নতুন এই পদ্ধতি কার্যকর হতে পারে। পেম্ব্রোলিজুমাব এবং গুয়াডেসাইটাবিনের সমন্বয়ে ৩৪ জন ক্যানসার রোগীকে চিকিৎসা করা হয়েছিল। তিন বছর ধরে প্রতি তিন সপ্তাহ পর টানা চার দিন রোগীদের গুয়াডেসাইটাবিন ইনজেকশন দেওয়া হয়েছিল। এর প্রথম দিনে দেওয়া হয় পেম্ব্রোলিজুমাব। পেম্ব্রোলিজুমাব ইতিমধ্যেই ফুসফুস ও ত্বকের ক্যানসারের চিকিৎসায় সাফল্য দেখিয়েছে। কিছু রোগীর ক্ষেত্রে দেখা গেছে, এ চিকিৎসা নিয়ে তাঁরা প্রথমে কার্যকারিতা পেলেও পরে অসুস্থ হয়ে পড়েছেন। 'ইনস্টিটিউট অব ক্যানসার রিসার্চ অ্যান্ড রয়েল মারসডেন এনএইচএস ফাউন্ডেশন ট্রাস্টে'র বিশেষজ্ঞরা বলছেন, দুই পদ্ধতির এই সমন্বয় বিভিন্ন ধরনের ক্যানসারের বিরুদ্ধে নতুন অস্ত্র হিসেবে কার্যকারী হতে পারে। অতএব, এক ধাপ এগোল মেডিক্যাল সায়েন্স। আরও একটু আয়ু বাড়িয়ে নিল অপরাজিত মানুষ।






«
Next
Newer Post
»
Previous
Older Post

No comments:

Leave a Reply