Sponsor



Slider

বিশ্ব

জাতীয়

রাজনীতি


খেলাধুলা

বিনোদন

ফিচার


যাবতীয় খবর

জিওগ্রাফিক্যাল

ফেসবুকে মুজিবনগর খবর

» » » » অস্ট্রেলিয়ার ৪০ শতাংশ নাগরিকের তথ্য চুরি




অস্ট্রেলিয়ার মোবাইল অপারেটর অপ্টাসের ১ কোটি গ্রাহকের ব্যক্তিগত তথ্য চুরি হয়েছে। সংস্থাটি জানায়, সাইবার হামলা চালিয়ে এ তথ্য চুরি করা হয়েছে। ইতোমধ্যে চুরির ঘটনায় তদন্ত শুরু হয়েছে। অপ্টাসের ধারণা, সাইবার হামলা অস্ট্রেলিয়ার বাইরে থেকে চালানো হতে পারে। শুক্রবার (৩০ সেপ্টেম্বর) অপ্টাসের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা কেলি বেয়ার রোজমারিন দাবি করেছেন, তাদের সাইবার নিরাপত্তাব্যবস্থাকে খুবই শক্তিশালী। তবে তিনি এও বলেছেন, তথ্য চুরি ব্যর্থ হওয়ায় হতাশ তিনি। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এটা অস্ট্রেলিয়ায় সবচেয়ে ভয়াবহ ব্যক্তিগত তথ্য চুরির ঘটনা হতে পারে। কারণ ১ কোটি গ্রাহক মানে অস্ট্রেলিয়ার মোট জনসংখ্যার প্রায় ৪০ শতাংশ। আরও পড়ুন: ইতালিতে প্রযুক্তি কোম্পানির বিরুদ্ধে স্মার্টফোন থেকে তথ্য চুরির অভিযোগ বিবিসির খবরে বলা হয়েছে, চুরি হয়ে যাওয়া গ্রাহকদের তথ্যের বিনিময়ে অপ্টাসের কাছে অর্থ দাবি করা হয়েছে। এদিকে তথ্য চুরি হওয়ার খবরে অপ্টাসের গ্রাহকদের মধ্যে অস্থিরতা বিরাজ করছে। অপ্টাস অস্ট্রেলিয়ার দ্বিতীয় বৃহত্তম মোবাইল অপারেটর। সিঙ্গাপুর টেলিকমিউনিকেশনস লিমিটেডের সহযোগী প্রতিষ্ঠান এটি। বৃহস্পতিবার (২৯ সেপ্টেম্বর) তাদের কাছ থেকে তথ্য চুরির ঘোষণাটা আসে। এর প্রায় ২৪ ঘণ্টা আগে নিজেদের টেলিযোগাযোগ নেটওয়ার্কে সন্দেহজনক কর্মকাণ্ড টের পায় তারা। অপ্টাসের বিবৃতিতে জানানো হয়, গ্রাহকদের নাম, জন্ম তারিখ, বাড়ির ঠিকানা, মুঠোফোন নম্বর, ই–মেইল অ্যাড্রেস, পাসপোর্ট নম্বর ও ড্রাইভিং লাইসেন্সের নম্বরের তথ্য চুরি হয়েছে। তবে অর্থ লেনদেনসংক্রান্ত তথ্য চুরি হয়নি। চুরি হওয়া তথ্যের কিছু নমুনা ইন্টারনেটে প্রকাশ করে এক ব্যক্তি অপ্টাসের কাছে ভার্চ্যুয়াল মুদ্রায় ১০ লাখ মার্কিন ডলার দাবি করেন। প্রতিষ্ঠানটিকে এক সপ্তাহ সময় বেঁধে দিয়ে ওই ব্যক্তি বলেন, এর মধ্যে অর্থ না পেলে চুরি হওয়া তথ্য বিক্রি করে দেবেন তিনি। শুধু ২৮ লাখ গ্রাহকের পাসপোর্ট ও ড্রাইভিং লাইসেন্সের নম্বর চুরি হয়েছে। অস্ট্রেলিয়া সরকার জানিয়েছে, এতে ওই গ্রাহকেরা প্রতারণার শিকার হতে পারে।






«
Next
Newer Post
»
Previous
Older Post

No comments:

Leave a Reply