Sponsor



Slider

বিশ্ব

জাতীয়

সাম্প্রতিক খবর


খেলাধুলা

বিনোদন

ফিচার

mujib

w

যাবতীয় খবর

জিওগ্রাফিক্যাল

ফেসবুকে মুজিবনগর খবর

» » » মেহেরপুরে ধানের ক্ষতি পুষিয়ে নিতে তুলনামূলক ভাবে বেড়েছে গম চাষ




গাংনীতে অন্য বছরগুলোর তুলনায় এবার গম চাষে বাম্পার ফলনের আশা করছে কৃষকরা। গাংনীতে ধানের ক্ষতি পুষিয়ে নিতে তুলনামূলক ভাবে বেড়েছে গম চাষ । অথচ আগের বছর গুলোতে গাংনীতে গম ক্ষেতে বøাস্ট রোগের আক্রমণের কারণে কৃষি অফিস গম চাষের ব্যাপারে চাষিদের নিরুৎসাহিত করেছিল।কৃষি অফিসের ভুল পরামর্শে গমের চাষের পরিবর্তে অনেকে বেশীর ভাগ পরিমাণ জমিতে চাষ হয়েছিল মসুরী ও তামাক।তবে এবছর উপজেলার সব মাঠে প্রচুর গম চাষ হয়েছে। কৃষি বিভাগের কর্মকর্তারা নিরুৎসাহিত করার পরও ২০২২ ইং বছরে উপজেলায় ৬ হাজার ৩৫০উপ হেক্টর জমিতে গম চাষ হয়েছিল।আগের বছরের মতো গমক্ষেতে বøাস্ট রোগ হতে পারে বলে আশঙ্কা ছিল। গত বছর এ উপজেলায় ৬ হাজার ৫৭০ হেক্টর জমিতে গম চাষ হয়েছিল। গত মৌসুমে ঝুঁকি নিয়েও যারা গম চাষ করেছিল তারা যে আশা করে ছিলো তার অধিক বেশি ফলন হয়েছিল। চলতি মৌসুমে উপজেলায় ৭ হাজার ৬৫ হেক্টর জমিতে গম চাষ হয়েছে। গম চাষে বাম্পার ফলনের আশা চাষীদের। গাংনী উপজেলা কৃষি অফিসার ইমরান হোসেন জানান, এ বছর রবি মৌসুমে জেলায় ৭ হাজার ৬৫ হেক্টর জমিতে গমের চাষ হয়েছে। গাংনী উপজেলার কামারখালী গ্রামের কৃষক হাসান মাহমুদ জানান, গত বছর আমি ৬৬ শতক (২ বিঘা)জমিতে গম চাষ করেছিলাম তাতে ফলন হয়েছে ৩৬ মণ। আমি এ বছরে একই জমিতে গম চাষ করেছি আশা করি আগের চেয়ে এবছর ফলন ভাল হবে। একই কথা জানালেন পলাশীপাড়া গ্রামের রবিউল ইসলাম । গত বছর তিনি ৫০ শতক জমিতে গম চাষ করে ছিলেন তাতে ফলন পেয়েছেন ২১ মণ,তিনি এবছর একই জমিতে গম চাষ করেছেন।আবহাওয়া ভাল হলে এবছর বাম্পার ফলনের আশা করছেন তিনি। হিন্দা গ্রামের আব্দুল গফুর জানান, তিনি ৫০ শতক জমিতে এবছর গম চাষ করেছেন । গাংনী উপজেলার ভোমরদহ গ্রামের মেম্বর আবুবকর জানান, উচ্চ ফলনশীল জাতের বারি গম-৩৩ চাষ করেছেন।অনেকেই বারি-৩০ ও বারি-৩১ ও ৩২ জাতের গম চাষ করেছেন। গমচাষের শুরু থেকেই বøাস্ট নামের ছত্রাক জনিত রোগটির বিষয়ে এবার যথেষ্ট সজাগ আছেন তারা। তাই সময়মত জমির পরিচর্যা করাসহ বøাস্ট ছত্রাক থেকে বাঁচতে বালাইনাশক স্প্রে করবেন বলে জানান তারা। কৃষি বিভাগের পরামর্শ উপেক্ষা করে গত বছর যেসব কৃষক গম চাষ করেছিল,কৃষি বিভাগের পক্ষ থেকে তাদের সময় মত গমক্ষেতে বিভিন্ন ধরনের ছত্রাকনাশক ওষুধ স্প্রে করায় ফলন ভাল হয়েছিল।তাই জেলার গমক্ষেত গুলোতে এবার ছত্রাকের প্রকোপ দেখা যায়নি। জনশ্রæতি রয়েছে, চলতি মৌসুমে শীতের প্রকোপ বেশী তাই বেশী শীতে গম ক্ষেত ভাল হয়। তবে গাংনী উপজেলায় গম ক্ষেতে বাম্পার ফলন হবে বলে তিনি আশা করছেন।






«
Next
Newer Post
»
Previous
Older Post

No comments:

Leave a Reply