Sponsor



Slider

বিশ্ব

জাতীয়

রাজনীতি


খেলাধুলা

বিনোদন

ফিচার


যাবতীয় খবর

জিওগ্রাফিক্যাল

ফেসবুকে মুজিবনগর খবর

» » » » ইতালির নির্বাচন: বুথফেরত জরিপে ডানপন্থীদের জয়




ইতালির পার্লামেন্ট নির্বাচনে ভোটগ্রহণ শেষ হয়েছে। শুরু হয়েছে ভোট গণনা। আনুষ্ঠানিক ফলাফল ঘোষণা হতে আরও কিছুটা সময় লাগতে পারে। তবে ফুতফেরত জরিপ মতে, নির্বাচনে জয় পেয়েছেন ডানপন্থী জোট। বিবিবি বলছে, জয় নিশ্চিত হলে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর ইতালির সবচেয়ে কট্টর ডানপন্থী সরকার গঠন করবেন ডানপন্থী জোটের নেত্রী জর্জিয়া মেলোনি। তার সরকার রাশিয়ার সঙ্গে সম্পর্ক আরও শক্তিশালী করতে পারে বলে মনে করা হচ্ছে। রাই বুথফেরত জরিপ বলছে, রোববারের (২৫ সেপ্টেম্বর) নির্বাচনে ৪১ থেকে ৪৫ শতাংশ ভোটে জয়ী হওয়ার পথে রয়েছে মেলোনি’র ব্রাদার্স অব ইতালি পার্টির নেতৃত্বাধীন ডানপন্থী জোট। তিনি প্রতিদ্বন্দ্বী বামপন্থী প্রার্থী এনরিকো লেট্টার চেয়ে অনেক এগিয়ে রয়েছেন। বিরোধী ডেমোক্রেটিক পার্টি ১৮.৩ শতাংশ ভোট পেতে পারে বলে মনে করা হচ্ছে। কট্টর রক্ষণশীল ব্রাদার্স অব ইতালি মোট ভোটের ২২ থেকে ২৬ শতাংশ পেতে পারে। এছাড়া জোটের অংশীদার মাত্তিও সালভিনির দল পেতে পারে ৮.৫ থেকে ১২.৫ শতাংশ ভোট। আর সিলভিও বারলুসকোনির ফোরজা ইতালিয়া পেতে পারে ৬ থেকে ৮ শতাংশ। আরও পড়ুন: অভিবাসী ইস্যুতে ইতালীয়দের যে নসিহত দিলেন পোপ এর মধ্যদিয়ে ইতালির প্রথম নারী প্রধানমন্ত্রী হওয়ার সাবেক প্রধানমন্ত্রী সিলভিও বারলুসকোনি ঘনিষ্ঠ রাজনীতিক ৪৫ বছর বয়সী মেলোনি। সোমবার দিনের শুরুতেই নির্বাচনের চূড়ান্ত ফলাফল ঘোষণা করা হতে পারে বলে আশা করা হচ্ছে। মেলোনির দল মাত্র কয়েক বছরে ব্যাপক জনপ্রিয়তা পেয়েছে। ২০১৮ সালেও তার দল মাত্র ৪.৫ শতাংশ ভোট পেয়েছিল। রোববার (২৫ সেপ্টেম্বর) সকাল ৭টা থেকে ভোটগ্রহণ শুরু হয়। চলে স্থানীয় সময় রাত ১১টা পর্যন্ত। বিবিসির প্রতিবেদন মতে, নির্বাচনে প্রায় পাঁচ কোটি ভোটার ভোট দেয়ার উপযুক্ত ছিলেন। তবে নির্ধারিত সময়ের মধ্যে ভোট পড়েছে ৬৩.৮২ শতাংশ। এটা গতবার তথা ২০১৮ সালের নির্বাচনের চেয়ে ১০ শতাংশ কম। মাত্র দশ বছর আগে ২০১২ সালে ব্রাদার্স অব ইতালি দলটি প্রতিষ্ঠা করেন জর্জিয়া। এর আগে তিনি সিলভিও বারলুসকোনির সরকারে সবচেয়ে কম বয়সে মন্ত্রী হন। আরও পড়ুন: নাগরিকদের মৃত্যুর মুখে পাঠাচ্ছেন পুতিন: জেলেনস্কি তরুণ বয়সে ইতালির নব্য নাৎসীবাদী আন্দোলনের যুব শাখায় যোগ দেন জর্জিয়া। ফ্যাসিস্ট শাসক বেনিতো মুসোলিনির সমর্থকরা দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর এই সংগঠন প্রতিষ্ঠা করেছিল। গত বছর তিনি নিজের এক বইতে দাবি করেন, তিনি ফ্যাসিস্ট নন। তবে নিজেকে তিনি মুসোলিনির উত্তরসূরীদের সঙ্গেই চিহ্নিত করেছেন। তিনি ইতালিতে মুসলিম অভিবাসীদের আগমনের বিরুদ্ধে। ব্রাদার্স অব ইতালি দলের সঙ্গে নব্য নাৎসীবাদীদের সম্পর্কে আছে বলে অভিযোগ করা হয়। রাশিয়ার বিরুদ্ধে পশ্চিমা দেশগুলো যে নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে, মিজ মেলোনি তা সমর্থন করেন। একই সঙ্গে ইউরোপের ব্যাপারে তার কড়া কথাবার্তা সাম্প্রতিক সময়ে কিছুটা কমিয়েছেন তিনি।






«
Next
Newer Post
»
Previous
Older Post

No comments:

Leave a Reply