Sponsor



Slider

বিশ্ব

জাতীয়

রাজনীতি


খেলাধুলা

বিনোদন

ফিচার


যাবতীয় খবর

জিওগ্রাফিক্যাল

ফেসবুকে মুজিবনগর খবর

» » » » মেসি, নেমারদের স্টেডিয়াম রক্ষণাবেক্ষণের দায়িত্বে, লিয়াজুদ্দিনের গর্বে গর্বিত নদীয়ার করিমপুর




মেসি, নেমারদের স্টেডিয়াম রক্ষণাবেক্ষণের দায়িত্বে, লিয়াজুদ্দিনের গর্বে গর্বিত করিমপুর বাড়তি রোজগারের আশায় মুম্বই থেকে দোহা পাড়ি দিয়েছিলেন পেশায় রং মিস্ত্রি লিয়াজুদ্দিন। কিন্তু কাতারে পৌঁছে প্রাথমিক ভাবে অত্যন্ত অভাবের মধ্যে দিয়ে কাটাতে হয়েছিল। সে সবই এখন অতীত। কাতারের দোহার খলিফা ইন্টারন্যাশনাল স্টেডিয়ামের রক্ষণাবেক্ষণে নদিয়ার তরুণ। কাতারের দোহার খলিফা ইন্টারন্যাশনাল স্টেডিয়ামের রক্ষণাবেক্ষণে নদিয়ার তরুণ। — নিজস্ব ছবি। কাতারে বিশ্বকাপে মেসি, নেমারদের স্টেডিয়ামের রক্ষণাবেক্ষণের দায়িত্বে যে দল, তার অন্যতম এক বাঙালি! মেসি, নেমারদের স্টেডিয়াম রক্ষণাবেক্ষণের দায়িত্বে, লিয়াজুদ্দিনের গর্বে গর্বিত

নদীয়ার করিমপুর তেহট্টের করিমপুর থানার কিশোরপুর গ্রামের লিয়াজুদ্দিন মণ্ডল। আপাতত কাতারের মোট ৮টি স্টেডিয়ামের মধ্যে খলিফা ইন্টারন্যাশনাল, লুসে ইল, আল বায়াত এডুকেশন সিটি স্টেডিয়াম রক্ষণাবেক্ষণের দায়িত্বে রয়েছে করিমপুরের লিয়াজুদ্দিনের দল। Advertisement ২০১৯ থেকেই আল খলিফা স্টেডিয়ামের পূর্ণাঙ্গ দায়িত্ব ছিল লিয়াজুদ্দিনের দলের উপর। তাঁদের সংস্থা পরবর্তী সময়ে মোট ৪টি স্টেডিয়ামের দায়িত্ব পায়, ফলে দায়িত্ব বাড়ে লিয়াজুদ্দিনেরও। আল হায়াত নামে একটি সংস্থা ৪৮,৫৭০ আসন বিশিষ্ট খলিফা ইন্টারন্যাশনাল স্টেডিয়ামের পূর্ণাঙ্গ দায়িত্ব পায় ২০১৯ সালে। কাতারের অপেক্ষাকৃত সাধারণ স্টেডিয়ামকে বিশ্বকাপের মতো সর্ববৃহৎ মঞ্চের জন্য প্রস্তুত করতে ঘাম ঝরিয়েছেন দেড় হাজারেরও বেশি শ্রমিক। গোটা কর্মকাণ্ড পর্যবেক্ষণের দায়িত্বে ছিলেন চার ভারতীয়। যাঁদের অন্যতম লিয়াজুদ্দিন। এই সংস্থার প্রধান বাস্তুকার মহম্মদ ইউসুফ আল বিন জানিয়েছেন, ‘‘প্রথম দিকে রঙের মিস্ত্রি হিসেবে লিয়াজুদ্দিনকে নেওয়া হয়েছিল। ওঁর কর্মদক্ষতার কারণে বাড়তি দায়িত্ব দেওয়া হয়েছিল। সুনামের সঙ্গে সেই দায়িত্বও পালন করছেন।’’ পেশায় রংমিস্ত্রি লিয়াজুদ্দিন। অভাবের কারণে পড়াশুনা বিশেষ এগোয়নি। স্কুলের পাঠ চুকিয়ে রুজির টানে স্কুলের ব্যাগেই জামাকাপড় ভরে পাড়ি দেন মুম্বই। সেখানে প্রথমে রং মিস্ত্রির জোগাড়ের কাজ করতেন। ৩ বছর কাজ করার পর মিস্ত্রি হিসাবে সুনাম অর্জন করেন লিয়াজুদ্দিন। বাড়তি মজুরির আশায় পাসপোর্ট এবং ওয়ার্ক ভিসা বানিয়ে পাড়ি দেন কাতার। কাতারে পৌঁছেও সমস্যা পিছু ছাড়েনি নদিয়ার যুবকের। নিদারুণ অর্থকষ্টে কেটেছে প্রথম একটা মাস। প্রথমে সেখানকার একটি খেজুর বাগান পরিচর্যার কাজ পান। কিছু দিন পর থেকে স্থানীয় একটি সংস্থায় রং মিস্ত্রির কাজও শুরু করেন। নিজের দক্ষতা প্রমাণ করতেই রকেটগতিতে উত্থান লিয়াজুদ্দিনের। ২০১৯-এ কাতারের ৪টি ফুটবল স্টেডিয়ামের রক্ষণাবেক্ষণের ভার পায় লিয়াজুদ্দিনের সংস্থা। সেই থেকেই খলিফা ইন্টারন্যাশনাল স্টেডিয়ামের দায়িত্বে নদিয়ার যুবক। লিয়াজুদ্দিনের ছোট বেলার বন্ধু খালেক মণ্ডল বলেন, “পৃথিবীর তাবড় তাবড় মহা তারকাদের সঙ্গে টিভিতে যখন বন্ধুকে ফুটবল মাঠে দেখি, খুব আনন্দ হয়। টিভিতে যখন খেলা সম্প্রচার হয়, ক্যামেরা লিয়াজের দিকে প্যান করলেই গর্বে বুক ভরে ওঠে।’’ লিয়াজুদ্দিনেরই পাড়ার প্রবীণ শিক্ষক ক্ষিতীশ ঘোষ বলেন, ‘‘সবাই ডাক্তার, মাস্টার হবে এমন কোনও কথা নেই। নিজের কর্মদক্ষতার জোরে লিয়াজ আমাদের গর্বিত করেছে।’’ Advertisement আর লিয়াজুদ্দিন নিজে বলছেন, ‘‘পড়াশোনা করতে পারিনি বেশি দূর। তা নিয়ে কাউকে অভিযোগ না করে যেটুকু শিখেছি, আমার মধ্যে যে ক্ষমতা আছে তাকে যতটা সম্ভব ব্যবহার করে নিজেকে প্রতিষ্ঠা করার নামই হচ্ছে আসল শিক্ষা। তবুও দুঃখ হয় এক-দেড় বছর পরে বাড়ি ফিরতে পাই। এই প্রজন্মকে বলব, ডিগ্রির ঝুলি না বাড়িয়ে কর্মদক্ষতায় জোর দাও, দুনিয়ায় কাজের অভাব নেই।’’






«
Next
Newer Post
»
Previous
Older Post

No comments:

Leave a Reply